মহান্ত বিদায়ে শেষ হচ্ছে খেতুরীধামের মহোৎসব

0

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী খেতুরীধামে হিন্দু ধর্মালম্বীদের তিন দিনব্যাপী মহোৎসব শেষ হচ্ছে শুক্রবার (২১ অক্টোবর) রাতে।

বুধবার (১৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় অধিবাসের মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছিল ঠাকুর নরোত্তম দাসের তিরোভাব তিথি মহোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।

বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) অরুণোদয় থেকে অষ্ট প্রহরব্যাপী সেখানে তারক ব্রহ্মনাম সংকীর্ত্তণ চলে। শুক্রবার (২১ অক্টোবর) প্রথম প্রহরে দধিমঙ্গল, দ্বি-প্রহরে ভোগ আরতি ও মহান্ত বিদায়ের মধ্য দিয়ে শেষ হবে হিন্দু সম্প্রদায়ের তিন দিনব্যাপী এই মহোৎসব।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার খেতুর গ্রামে অবস্থিত এই ধাম প্রতি বছরের মতো এবারও ভক্তদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে। খেতুরীধামের এই উৎসবকে ঘিরে প্রতি বছর দুই বাংলার ভক্তদের ভিড়ে গৌরাঙ্গবাড়ী মন্দির প্রকম্পিত হয়ে উঠেছে।

বলা হয়ে থাকে, বাংলাদেশ হিন্দু ধর্মালম্বীদের এটিই সবচেয়ে বড় জমায়েত। উৎসব সুষ্ঠুভাবে শেষ করতে খেতুরীধাম ট্রাস্টিবোর্ড ও উপজেলা প্রশাসন যৌথভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ নেওয়াজ জানান, এবারের উৎসবকে ঘিরে পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

উৎসব উপলক্ষে আয়োজিত মেলা নির্বিঘ্ন করতে মাঠে রয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত ও ট্রাস্টি বোর্ডের নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক। তবে এখন পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিপজুর আলম মুন্সি জানান, খেতুরীধামের উৎসব ও মেলায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

সেখানে তিন স্তরে ৩০৫ জন পুলিশ সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন। দু’টি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। এছাড়া র‌্যাব, গোয়েন্দা পুলিশ ও আনসার সদস্য নিয়োজিত রয়েছে বলেও জানান ওসি।

খবরঃ বাংলানিউজ

Share.



Comments are closed.