রাজশাহী কলেজের গেটে যানজট, দুর্ভোগে শিক্ষার্থী

15

রাজশাহী কলেজের সামনের যানজট এখন পথচারীদের নিত্তসঙ্গী। দীর্ঘ যানজটের ফলে পথচারী ও শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ এখন প্রতিদিনের নিয়মিত ঘটনা। যদিও যানজট নিরসনে কলেজের সামনে একটি ওভারব্রিজ হওয়ার কথা ছিল, সেটা এখন অবধি কথাই রয়ে গেছে। যার ফলে প্রতিনিয়তই সাধারণ শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা সমস্যায় পড়ছেন। মাঝে মধ্যে ছোট খাটো দুর্ঘটনাও ঘটে থাকে এ জায়গায়।

এদিকে মনি চত্বরের ইউটার্ন ও রাইটটার্ন সরিয়ে দিয়ে রাজশাহী সিটি সেন্টারের সামনে করা হয়েছে। এতে যানবাহন পারাপারে ভয়াবহ জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। মনি চত্বরের চেয়ে সিটি সেন্টারের সামনের রাস্তা আরো সরু। তাই সেখানে বাঁক নিতে গিয়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। আর এ যানজটকে আরো ভয়াবহ পরিস্থিতিতে নিয়ে গেছে লোকনাথ স্কুলের সামনের অনলাইন ব্যবসায়ীদের দোকানগুলো। লোকনাথ স্কুলের মূল গেট সংলগ্ন রাস্তার উপরে দোকান নির্মান করে দীর্ঘদিন থেকেই রমরমা অনলাইন ব্যবসা চালাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে লোকনাথ স্কুলের সামনের রাস্তাটি অনেক সরু, তার উপর অর্ধেক রাস্তা দখল করে রাস্তার দুই পাশে দোকান বসানোর কারণে ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী শিক্ষার্থী, যানবহন ও পথচারীদের ব্যপক ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হচ্ছে। রাস্তা দখল করে দোকান বসানোর কারণে সেখানে আড্ডা দেয়া বখাটেরা স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন কথাবার্তা বলে হয়রাণি করে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

রাজশাহী কলেজের অর্থনীতি বিভাগে দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আসাদুজ্জামান নূর জানান, কলেজের সামনে ব্যাপক ভাবে যানজট লেগে থাকে। এতে আমাদের রাস্তা পারাপার হতে অনেক সমস্যা হয়।
কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগে মাস্টার্স বর্ষের শিক্ষার্থী নাইম, রইস ও ফিরোজ জানান, আমরা সহজেই রাস্তা পারাপার হতে পারিনা। রাস্তা পার হওয়ার জন্য অনেক্ষন ধরে অপেক্ষা করতে হয়, অনেক সময় রিক্সা ও অটোরিক্সার ধাক্কাও খেতে হয়। তাছাড়া ভার্সিটির বাস অনেক জোরে চলাচল করে। যানজটের কারনে বিভিন্ন সময় তাদের দুর্ঘটনার মুখে পড়তে হয়। তারা বলেন বিশেষ করে অনেক শিক্ষার্থীদের বয়স্ক অভিভাবকবৃন্দ রাস্তা পারাপার হতে গিয়ে অনেক সমস্যার সম্মুক্ষিন হয়। এখানে একটি ওভারব্রিজ নির্মান হলে শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের এ সমস্যার সমাধান হবে বলে জানান তারা।

রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমানের কাছে কলেজের সামনের যানজট ও ওভারব্রিজ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান এর সময় এ ব্যাপারে কথা হয়েছিল, তিনি এখানে ওভারব্রিজ করার আশ্বাস দিয়েছিলেন। এছাড়া সাবেক পুলিশ কমিশনার মনিরুজ্জামান যানজটে শিক্ষার্থীদেস সমস্যার কথা বিবেচনা করে ওভার ব্রিজের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেছিলেন।

তবে তিনি যানজটের অন্যতম কারন উল্লেখ করে বলেন, লোকনাথ স্কুলের সামনে রাস্তার দুপাশেই দোকান বসার জন্য যানজট আরো তীব্র আকার ধারন করেছে। তিনি সিটি কর্পোরেশনের কাছে এসব দোকানের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন করেন।

খবরঃ দৈনিক সানশাইন 

Share.



15 Comments

  1. Priencess Humaira

    Ai janjot er fole rasta par hote ritimoto onk smy lage jay amader + kokhn o kokhn o ricsha r charger er dhakka o khete hoy 🙁 sob smy voye thaki kokhn ki durghotona ghote

  2. Abdur Rob Sobuz

    রাজশাহী শহরের জন্য এত অটো প্রয়োজন নাই। দিন দিন হু হু করে অটোর সংখ্যা বাড়ছে। খেয়াল করলে দেখা যায় যে বেশির ভাগ অটোগুলাতে ২/৩ জন বসে আছে এবং সেগুলোতে অন্য কেউ আর উটতে চায় না, আরেকটা খুঁজে। এই অটো চালক গুলার কোন ট্রাফিক নলেজও নাই, যেখানে সেখানে হুট করে দাঁড় করায়।
    ২ দিন ড্রাইভারের সাথে ঘুরেই রাস্তায় নেমে পড়ে কোন রকম ট্রাফিক আইনকানুন জানা ছাড়াই।
    সিটি কর্পোরেশন থেকে শুধু অটো সাপ্লাই দিলেই হবে না, প্রত্যেক চালকের বেসিক ট্রাফিক নিয়ম কানুন বা ট্রেনিং এর ব্যবস্থা থাকা দরকার বলে আমি মনে করি।
    কিছু কিছু রুট ভাগ করে দিতে হবে, যাতে করে যত্রতত্র জ্যাম না হয়।
    রাজশাহী শহরে আগে এত জ্যাম কখোনই ছিল না। বিশেষ করে সাহেব বাজার, রেলগেট, বর্ণালী মোড়ে,ও লক্ষীপুরে ভয়াবহ অবস্থা।
    জরুরি উত্তোরন আশা করছি।।

  3. MD Momen

    লোকনাথ School এর রোড দখল করে অনেক দোকান আছে সেগুলো আউট করা হোক

  4. Fahmida Haque

    রাজশাহীতে অটো ও মানুষ দুটোর যেন বান এসেছে। সেই তুলনায় জায়গা তো বাড়ছেনা। শিক্ষাঙ্গনের সামনে যদি েমন ভিড় হয় শিক্ষার্থীদের কি অবস্থা তা ভেবে দেখা উচিত প্রশাসনের। প্রয়জনে রাস্তাটাকে প্রশস্ত করতে হবে।

  5. Nirob Rony

    দুর্ঘটনার সম্ভাবনা খুব বেশি থাকে ছাত্রছাত্রীদের ।।।।

  6. Shazid Hafiz

    Aro beshy kore Autoricshaw barate hobe jeno raat din jott i na khule….hayre shanty r nogor Civil Surgeon Rajshahi shesh kore debe ei auto…….jotto shob neshakhor gulo er chalok…kono niyom nai……

Open