রাজশাহীতে কলেজছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগ

2

রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার নওয়াপাড়ায় এবার কলেজছাত্রীকে তুলে নিয়ে গিয়ে তিন বখাটে গণধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুঠিয়ার বিড়ালদহ কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ওই ছাত্রীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসেস সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটানটি ঘটেছে গত ২৮ সেপ্টেম্বর। তবে ঘটনার পর থেকেই বিষয়টি কাউকে না বলার জন্য তিন বখাটের পক্ষ থেকে অব্যাহতভাবে চাপ প্রয়োগ করে আসা হচ্ছিল। এমনকি কাউকে বললে স্বপরিবারে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। এতে প্রাণভয়ে ঘটনাটি এতোদিন কাউকে জানায়নি ওই ছাত্রীটি।

তবে শেষ পর্যন্ত ক্রমেই তার স্বাস্থ্যের অবনতি হতে থাকলে বৃহস্পতিবার তিনি পুঠিয়া থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত ওই তিন বখাটে হলো- পুঠিয়ার নওয়াপাড়া এলাকার শাহজাহান আলী (২৪), শামীম (২৩) ও ফারুক হোসেন (২৫)। এর মধ্যে শাহজাহান আলী হলেন কলেজছাত্রীর সাবেক স্বামী। বেশকিছুদিন আগে ওই ছাত্রীর সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল। এরপর সম্প্রতি তাদের বিচ্ছেদ ঘটে। তখন থেকেই মেয়েটি তার বাবার বাড়িতে থাকতো।

ওই ছাত্রীর বাবা জানান, পুঠিয়ার নওয়াপাড়া এলাকার ওই কলেজছাত্রী গত ২৮ তারিখ সন্ধ্যার দিকে একই এলাকায় তার নানীর বাড়িতে বেড়াতে যান। এরপর তিনি তার নানীর বাড়ি থেকে পাশেই নানীর বোনের বাড়িতে যাওয়ার জন্য রাত ৯টার দিকে বের হন।

এসময় ওঁৎ পেতে থাকা বখাটে তিন যুবক শাহজাহান আলী, শামীম এবং ফারুক মিলে মেয়েটিকে জোর করে ধরে নিয়ে যায় বাড়ির পাশের বাগানের মধ্যে। এরপর তারা জোর করে মেয়েটিকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। শেষে রাত ১১টার দিকে ওই ছাত্রীকে ছেড়ে দেয় তারা।

কিন্তু ঘটনাটি কাউকে বললে মেয়েকেসহ তার পরিবারের লোকজনকে প্রাণে ফেলার হুমকি দেয় ওই বখাটেরা। তখন মেয়েটি বাড়িতে চলে আসেন।

ছাত্রীর বাবা আরও জানান, বাড়িতে আসার পর থেকে মেয়েটি ক্রমেই অসুস্থ হয়ে পড়তে থাকেন। কিন্তু নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের কথা চিন্তা করে ঘটনাটি কাউকে বলতে সাহস পাননি। তবে অবস্থা ক্রমেই অবনতি হতে থাকলে তাকে শেষ পর্যন্ত বৃহস্পতিবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমান ভুঁইয়া বলেন, ‘ওই ঘটনায় বখাটে তিন যুবকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

খবরঃ ডেইলি সানশাইন

Share.



2 Comments

  1. Tabassum Zaman

    agulaki thik?Bichar chai ai soytan kutta der….ar sabdhan thakte hobe apuder……voy peye bose thakle hobena…..boroder kinba gurujonder janate hobe keu birokto korle kinba kharap kisu bolle….jibonto akbar…so carefull……jiner future nije gorar sopoth kori amra…..keu amader kharap kisu bolte parbena borong voy pabe….

Open