অবাঞ্চিত ভুতুড়ে বিল – ভোগান্তির শিকার হয়ে রাজশাহীতে মানববন্ধন

আমাদের রাজশাহী রাজশাহী

উত্তরবঙ্গে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সেবা সংস্থা নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানির (নেসকো) ভুতুড়ে বিল বন্ধ, গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবিতে রাজশাহীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

নেসকো এর প্রধান কার্যালয়ের সামনে ২৭ অক্টোবর মঙ্গলবার বেলা এগারোটা থেকে ঘণ্টাব্যাপী এ কর্মসূচির আয়োজন করে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ।
নেসকোর ভৌতিক বিল আদায় বন্ধ, দুর্নীতি দমন, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিত, অনিয়ম বন্ধের দাবি জানানো হয় এই কর্মসূচিতে।
বক্তারা বলেন কোম্পানিতে রূপান্তরিত হওয়ার পর থেকেই জবাবদিহিতা ছাড়াই চলছে নেসকোর কার্যক্রম।
বিদ্যুৎ বিলের ভোগান্তি সবচেয়ে অসহনীয়। মিটার রিডিং না দেখে অফিস থেকে মনগড়া বিদ্যুতের বিল তৈরি করার জন্য হয়রানি হতে হচ্ছে গ্রাহকদের।

মানববন্ধন থেকে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন বর্তমান সরকার বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নে ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত করেছেন। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পরিষেবা পৌঁছানোর জন্য নিরলসভাবে কাজ করছেন সরকার। গ্রামেও বিদ্যুৎ সুবিধা ভোগ করছে। তবে উত্তরবঙ্গের নেসকো যেভাবে দুর্নীতি ও অনিয়মে পরিণত হয়ে বিদ্যুৎ খাত নিয়ে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছে এতে অসন্তোষ বৃদ্ধি পাচ্ছে।
তিনি অবিলম্বে নেসকোর গ্রাহকসেবা বৃদ্ধি, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পরিষেবা নিশ্চিত ও ভুতুড়ে বিল বন্ধের জোর দাবি জানান। একইসঙ্গে অনিয়ম ও ব্যবস্থাপনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানান।

বিষয়টি দেখে নেসকোর নির্বাহী প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে আগের মাসের বিল দেখে সমন্বয় করে বিল করা হয়। কিন্তু এতে কম বেশি হওয়ার কোনো কারণ নেই। যেটা হয়েছে সেটা প্রিন্ট মিসটেক। তিনি আরো বলেন, যাদের বেশি বিল এসেছে তারা অফিসে যোগাযোগ করলে বিল ঠিক করে দেওয়া হবে।

রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মোঃ লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জামাল খান, সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ প্রমাণিক দেবু, বিএফইউজে সভাপতি মামুন-অর-রশিদ, আইনজীবী এনামুল হক বাবু প্রমুখ।