আন্তর্জাতিক প্রোগ্রামিং কনটেস্টে দক্ষিণ এশিয়ার সেরা জাবি

ক্যাম্পাসের খবর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় তথ্য প্রযুক্তি

সম্প্রতি থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক কম্পিউটার প্রোগ্রামিং কনটেস্ট্রে বিজয়ী হয়েছে জাহাঙ্গীর বিশ্ববিদ্যালয় দল।

গত ১৯ মে থাইল্যান্ডে এ প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। অ্যাসোসিয়েশন ফর কম্পিউটিং মেশিনারি ইন্টারন্যাশনাল কলেজিয়েট প্রোগ্রামিং কনটেস্ট-২০১৬ (এসিএম-আইসিপিসি) নামের এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ১২৮টি দেশের মধ্যে বিশ্ব র্যাংকিংয়ে ৫০তম স্থান দখল করে জাবি দল।

এ দলে ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজির ৪১ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী নিলয় দত্ত ও নাফিস সাদিক এবং কম্পিউটার অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী রাইহাত জামান।

প্রতিযোগিতায় ভারত, পাকিস্তান, মালদ্বীপকে পেছনে ফেলে প্রতিযোগিতায় দক্ষিণ এশিয়ার সেরা হয় তারা।

এতে এসব দেশ থেকে অংশগ্রহণকারীদের জন্য নির্ধারিত ১৩টি সমস্যা দেওয়া হয়। এরমধ্যে ছয়টির সমাধান করতে সক্ষম হয়ন জাবির শিক্ষার্থীরা।

প্রতিযোগিতায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দু’টি দলও অংশ নেয়। এরমধ্যে শাবিপ্রবি ১০৮তম স্থান দখল করে এবং ১১০তম হয় নর্থ সাউথ।

এর আগে ২০১৫ সালের ১৪ নভেম্বরে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের জন্য মর্যাদাপূর্ণ কম্পিউটিং প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা।

সেখানে ঢাকা পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয় জাবির দলটি। এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলো ১২১টি দল। এরমধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় রানার্স আপ হয় শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় ও নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি। আর চ্যাম্পিয়ন হয় জাবি দল।

গত ১২ মে জাবি সিনেট হলে বেশ ঘটা করে তিনজনের দলকে আনুষ্ঠানিক বিদায় জানানো হয়। ওই সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামসহ জ্যেষ্ঠ শিক্ষক-কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

জাবি দলের কোচ ও কো-কোচ হিসেবে রয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআইটির শিক্ষক কেএম আক্কাস আলী ও ফজলুল করিম পাটোয়ারী।

ফজলুল করিম পাটোয়ারী বলেন, ‘ছেলেরা অনেক ভালো করেছে। যদিও আমাদের আশা ছিলো বিশ্ব র্যাংকিংয়ে প্রথম ৩০-এর মধ্যে থাকা। জাহাঙ্গীরনগরের পাশাপাশি বাংলাদেশ এমনকি দক্ষিণ এশিয়ারও প্রতিনিধিত্ব করেছি আমরা। এটা সত্যিই আমাদের জন্য অত্যেন্ত গৌরবের।’

জাবি দলের সদস্য নাফিস সাদিক বলেন, দেশের বিভিন্ন কনটেস্টে অনেকবার সেরা হয়েছি। এবার দেশের বাইরেও হলাম, যা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশের জন্যে গৌরব নিয়ে এসেছে।

খবরঃ বাংলানিউজ