ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ

ক্যাম্পাসের খবর রাজশাহী

islami

ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজে শিক্ষার্থীদের কাছে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই অর্থ আদায়ের ক্ষেত্রে কোনো ধরণের রশিদ দেয়া হচ্ছে না। অভিভাবভকরা অভিযোগ করেন, চলতি মাসে অতিরিক্ত আদায় করা হচ্ছে ১০ হাজার টাকা। এটি নেয়া হচ্ছে পরীক্ষা ফি হিসেবে। এছাড়া একদিন দেরির জন্য অতিরিক্ত ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। সেমিস্টার ফির সঙ্গে পূর্বেই এই ফি আদায় করে নেয়া হয়েছে বলে দাবি করেন তারা। প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ এর আগে তার প্রতিষ্ঠিত একটি এতিমখানার জন্য ৫০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা সেমিস্টার ফি হিসেবে ২২৫০০ টাকা জমা দেয়। এর মধ্যে ১২ হাজার টাকার রশিদ দেয়া হয়।

এই কলেজে একজন শিক্ষার্থীর এমবিবিএস পাশ করতে সর্বমোট ২০ লাখ ৯০ হাজার টাকা লাগার কথা। তবে এই হারে রশিদ ছাড়া টাকা আদায় করা হলে এই পরিমান বাড়তে থাকবে। ভর্তির সময় প্রতি শিক্ষার্থীর কাছে নেয়া হয়েছে এককালিন ১২ লাখ টাকা। প্রতি সেমিস্টারে ফি হিসেবে লাগে ৭০ হাজার টাকা। মাসিক বেতন ছয় হাজার টাকা। প্রথম অবস্থায় ১২ লাখ টাকা শুরুতে নেয়া হলেও বর্তমানে সরকারি বিধি নিষেধের কারনে ১০ হাজার টাকা নেয়া হয়েছে। কলেজে এখন মোট ১১টি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অধ্যায়ন করছে।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হয় ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. নজরুল ইসলামের সঙ্গে তার বাড়ির ল্যান্ডে ফোনে গত বুধবার রাত ৮.৪৫ মিনিটে ফোন দেয়া হলে বলা হয় তিনি ঘুমিয়ে পড়েছেন। গতকাল কয়েকবার সেল ফোনে চেষ্টা করে সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে। ম্যাসেজ পাঠিয়েও কোনো উত্তর পাওয়া যায় নি। প্রতিষ্ঠানের উপাধক্ষ্য প্রফেসর ডা. আব্দুল মুকিত সরকার এ বিষয়ে বলেন, এ বিষয়টি তার জানা নেই। তিনি এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী শাখা বা হিসাব শাখার সঙ্গে যোগোযোগ করতে বলেন।

রাজশাহী বিভাগের বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোর কার্যক্রম নিয়ন্ত্রনকারি প্রতিষ্ঠান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর সারোয়ার জাহান বলেন, তারা এসকল প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা কার্যক্রমের মানের বিষয়টি বিশেষত পরীক্ষা, পাঠদান, লাইব্রেরি ইত্যাদি তারা মনিটারিং করে থাকেন। শিক্ষার্থী ভর্তি, ফি ইত্যাদি বিষয় শিক্ষা মন্ত্রনালয় দেখে থাকে। তবে রশিদ ছাড়া যদি ফি আদায় করা হয়ে থাকে তবে এটি প্রতিষ্ঠানের স্বচ্ছতার পরিপন্থি।

সুত্রঃ সানশাইন

Leave a Reply

Your email address will not be published.