একা কীভাবে ভালো থাকে!

জীবনযাপন

প্রিয়ার বয়স ৩০ ছাড়িয়েছে। ভালো একটা জব করছে পড়াশোনা শেষ করে। পরিবারের বড় সন্তান হওয়ায়, ছোট ভাইবোনদের পড়াশোনাসহ সংসারের বেশ কিছু দায়িত্ব পালন করে সে। আর এতো কিছু সামলে বিয়েটা এখনো করা হয়ে ওঠেনি। শহরে একা থাকে, পরিবারের অন্যরা থাকেন গ্রামের বাড়িতে।

একা একটা মেয়ে ভালো থাকে? এমন প্রশ্ন যেন অনেকের চোখেই দেখতে পায় প্রিয়া। কেন নয়? সে ভালো থাকতে চায়…পৃথিবীটাকে নিজের মতো করে দেখতে চায়।

ভালোবাসা কি শুধু অন্যকে দেয়ার জন্য, নিজের জন্য কি আমরা কখনো ভেবেছি? নিজেকে কখনো ভালোবেসেছি? প্রিয় বন্ধুটির কোনো ভালো খবরে পার্টি দেই আমরা। নিজের কোনো কৃতিত্বের জন্য কি কখনো নিজের জন্য কোনো গিফট্ কিনেছি?

অন্যকে ভালোবাসতে হলে নিজেকেও ভালো থাকতে হবে। নিজের জীবনের অর্জনগুলোকে উদযাপন করতে হবে।

আসুন জেনে নেই একাও কীভাবে ভালো থাকা যায়:

বেড়াতে যান
কয়েক দিন হয়তো কাজ করে হাঁপিয়ে উঠেছেন, কিছুটা সময় নিয়ে ঘুরতে বেরিয়ে পড়তে পারেন যেকোনো জায়গায়।

...বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা
নিঃসঙ্গতা কাটাতে মাঝে মাঝে যোগাযোগ করতে পারেন পুরানো বন্ধুদের সঙ্গে। কোথাও আড্ডা হয়ে যাক না একদিন সবাই মিলে, এই ভালো সময়ের স্মৃতিটাই চাঙ্গা রাখবে বেশ অনেক দিন।

রান্না করতে ভালো লাগে? 
বিশেষ কোনো দিন শুধু নিজের জন্য পছন্দের আইটেমগুলো তৈরি করুন। এরপর অতিথি এলে যেভাবে পরিবেশন করেন, সেভাবে সাজিয়ে আগে একটি ছবি তুলুন। এতো রান্না করলেন, বন্ধুদের দেখাতে হবে না? এবার নিজেও একটু তৈরি হয়ে বাতি নিভিয়ে একটি মোম জ্বালিয়ে খেতে শুরু করুন। এই আয়োজন করতে করতেই দেখবেন নিজের মনে ভালো লাগা তৈরি হয়েছে।

জন্মদিন যেন কবে?

সেদিন প্রিয়া বলছিলো, কতো দিন কোনো উপহার পাই না। কেন মন খারাপ করছেন? আপনার সাধ্যের মধ্যে সুন্দর কোনো উপহার কিনুন। আর নিজেকেই গিফট করুন। জন্মদিন বা যে কোনো উৎসব, কোনো অর্জন সবই সেলিব্রেট করুন, ছোট ছোট উপহারে।

কারও সঙ্গেই যোগাযোগ নেই
কারও সঙ্গেই যোগাযোগ না রাখার দিন তো এটা না। সবার সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলতে হবে। আর এজন্য তো রয়েছেই বেশ কিছু সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম।

কাজ ভালোবাসুন
ব্যস্ত থাকলে সময় যেমন দ্রুত পার হয়। তেমনি জীবনের এই গতি আমাদের উন্নতির শীর্ষে পৌঁছে দিতে সাহায্য করে।

খবরঃ বাংলানিউজ