কন্যার রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামীকে দুষলেন মা

দুর্গাপুর রাজশাহী

দুর্গাপুরে নিশি খাতুন স্বর্ণা (১২) নামের এক শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। নিহত শিশুর মায়ের দাবি, মেয়েকে বিষপান করিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আর এ জন্য স্বামীর দিকে ইঙ্গিত করলেন।

শুক্রবার দুপুরে অসুস্থ অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেয়ার পথে শিশুটির মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় থানায় ইউডি মামলা হয়েছে।

নিহত স্বর্ণা দুর্গাপুর পৌর এলাকার গুড়খাই গ্রামের খোকন আলীর দ্বিতীয় স্ত্রী সুমি বেগমের কন্যা।

দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পরিমল কুমার চক্রবর্তী বলেন, শিশুটি দু’দিন ধরে ডায়রিয়াজনিত রোগে ভুগছিল। শুক্রবার দুপুরে দুর্গাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তির জন্য নিয়ে আসা হয়। এ সময় শিশুটির শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকরা রামেক হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। পরে রামেক হাসপাতালে নেয়ার পথে উপজেলার আমগাছী এলাকায় শিশুটির মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় স্বর্ণার মা সুমি বেগম বাদী হয়ে থানায় ইউডি মামলা করেছে। শিশুটির লাশের ময়না তদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সুমি বেগমের অভিযোগ, স্বামী খোকনের সঙ্গে তার কলহ চলছিল। এ কারণে স্বর্ণাকে তার বাবা খোকন বিষ মেশানো লিচু খাইয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে শিশুটির বাবা খোকন বলেন, তার মেয়ে গত দু’দিন ধরে ডায়রিয়ায় ভুগছিল। শুক্রবার দুপুরে দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রের বাইরে একটি ওষুধের দোকানে স্ত্রী সুমি ও মেয়ে স্বর্ণার সঙ্গে তার দেখা হয়। ওই সময় শিশুটি লিচু খেতে চাইলে একটি লিচু খাওয়ানো হয়। এর পরপরই শিশুটির শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়।

এদিকে সন্ধ্যায় স্বর্ণার ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক ডা. এনামুল হক জানান, বিষক্রিয়ায় শিশুটি মৃত্যু হয়েছে এমন আলামত প্রাথমিকভাবে পাওয়া যায়নি।

খবরঃ বাংলামেইল২৪