‘করোনামুক্ত’ নগরীর তকমা হারালো রাজশাহী

রাজশাহী

একদিন আগেও ‘করোনামুক্ত’ নগরী হিসেবে খ্যাত ছিল রাজশাহী শহর। কিন্তু মহানগরীও আর করোনামুক্ত রইল না। গত ১২ এপ্রিল প্রথম কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়েছিল রাজশাহী জেলায়। আর শুক্রবার (১৫ মে) প্রথম শনাক্ত হলো রাজশাহী নগরীতে।

শুক্রবার (১৫ মে) রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের (রামেক) ভাইরোলজি বিভাগের ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় শহরের উপ-ভদ্রা এলাকার ৫০ বছর বয়সী এক নারীর করোনা শনাক্ত হয়েছে।

রামেক ল্যাব সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার ৯৪টি নমুনা নিয়ে পরীক্ষা শুরু করা হয়। তবে ত্রুটি থাকায় ৩৮টি নমুনার রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। বাকি ৫৬টি নমুনার মধ্যে চারটির রিপোর্ট এসেছে পজিটিভ। ৫২টি নেগেটিভ। নতুন শনাক্ত হওয়া চারজনের মধ্যে তিনজনের বাড়িই নওগাঁ জেলায়। একজনের বাড়ি রাজশাহী মহানগরীর উপ-ভদ্রায়।

রাজশাহী জেলায় গত ১২ এপ্রিল প্রথম করোনা ভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ১৭ জন শনাক্ত হওয়ার পর ১০ দিন নতুন করে কোনো আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়নি। তবে বৃহস্পতিবার (১৪ মে) রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় গাজীপুর থেকে আসা এক দম্পতির করোনা শনাক্ত হয়। এতে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয় ১৯।

কিন্তু পরদিনই শহরে একজন করোনা শনাক্ত হয়ে সংখ্যাটি বেড়ে দাঁড়ালো ২০ জনে। সেইসঙ্গে রাজশাহী শহরও ‘করোনামুক্ত’ তকমা হারালো। এখন শুধু জেলার চারঘাট ও গোদাগাড়ী উপজেলা করোনামুক্ত থাকলো।

রাজশাহীতে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে বাঘা উপজেলার একজনের মৃত্যু হয়ছে। যদিও তার মৃত্যুর পর নমুনা পরীক্ষায় করোনা ‘নেগেটিভ’ পাওয়া গেছে। কিন্তু এখনও দেশের স্বাস্থ্য অধিদফতরের তালিকায় করোনা পজিটিভ হিসেবেই তার মৃত্যু তালিকাভুক্ত আছে।

রাজশাহীতে মোট করোনা আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টিন ও হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডের আইসোলেশনে থেকে ছয়জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ বাংলানিউজ