কানে হেডফোন, ট্রেনে কেটে প্রাণ গেলো রুয়েট শিক্ষার্থী সজিবের

ক্যাম্পাসের খবর রাজশাহী রুয়েট

রাজশাহীতে ট্রেনে কাটা পড়ে আরিফ আহসান সজিব (২১) নামের রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (০৫ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে মহানগরীর কাদিরগঞ্জ গ্রেটার রোড মসজিদ রেলগেট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আরিফ রুয়েট সিভিল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি সিলেট পল্লীবিদ্যুতের (বর্তমান) প্রকৌশলী ও মহানগরীর তেরখাদিয়া এলাকার মাহবুবুল হোসেনের ছেলে।

রাজশাহীর জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকবর আলী জানান, কাদিরগঞ্জ গ্রেটার রোড মসজিদ রেলগেট এলাকায় রেললাইন দিয়ে হাঁটছিলেন আরিফ আহসান সজিব।

কানে হেডফোন লাগিয়ে মোবাইলে কথা বলছিলেন আরিফ আহসান। এ সময় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে রাজশাহীগামী একটি ট্রেন আসলেও সজিব খেয়াল করেন নি। স্থানীয়রা তাকে সরে দাঁড়াতে চিৎকার করলেও তিনি তা শুনতে পারেন নি। এতে ট্রেনে কাটা পড়ে তার মৃত্যু হয়।

খবর পেয়ে জিআরপি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই তার মরদেহ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়।

এ ঘটনায় জিআরপি থানায় অপমৃত্যুর মামলা হবে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

খবরঃ বাংলানিউজ

38 thoughts on “কানে হেডফোন, ট্রেনে কেটে প্রাণ গেলো রুয়েট শিক্ষার্থী সজিবের

  1. এসব কুলাঙ্গার দের এভাবেই মরা উচিত .এতই সে গান শোনায় মগ্ন. যে ট্রেনের শব্দ কিংবা ট্রেন আসার অনুভূতি বুঝতে পারেনা

  2. তার কানে কোনো হেডফোন ছিলনা। সে গ্রিলের দোকান থেকে একটা পেমেন্ট করে আসছিল।তার হাতে মোবাইল ছিল।ঘাড়ে ব্যাগ ছিল।

  3. না জেনে কথা বলবেন না। একটা মৃত মানুষকে গালি দিতে লজ্জা করে না? প্রত্যক্ষদর্শীরা অনেকেই বলছে তার কানে হেডফোন ছিলো না।

  4. এই ছেলের মৃত্যুটা ঠিক আমাদের বাসা থেকে একটু সামনে হয়েছে। এতই খারাপ লাগছে যে বলে বোঝানো যাবে না।

  5. ইন্না‌লিল্লা‌হে…অাল্লাহ তা‌কে জান্নাত বাসী করুন অামীন। খুব কষ্ট লাগ‌ছে ছে‌লেটা অামা‌দের বাড়ীর সাম‌নে কাট‌া প‌ড়ে‌ছে।

  6. আসলে ঘটনার কিছুক্ষণ পর সেখানে যেয়ে শুনলাম যে কানে হেডফোনে কথা বলতে বলতে যাচ্ছিলো। হয়তো তার বাবার সাথে কথা বলছিলো। কারণ সে তাদের গেট বানানোর টাকা পেইড করতে এসেছিলো সেখানে। এটাই হয়তো তার বাবাকে বলছিলো। আবার অনেকেই বলছে হাতে ফোন আর ঘাড়ে ব্যাগ ছিলো। যাই হোক, এখন তো আর এসব বলে লাভ নাই। বাবা-মা তো তার সন্তানকে চিরকালের জন্য হারিয়ে দিলো।

  7. না জেনে কথা বলবেন না। একটা মৃত মানুষকে গালি দিতে লজ্জা করে না? প্রত্যক্ষদর্শীরা অনেকেই বলছে তার কানে হেডফোন ছিলো না।

  8. না জেনে কথা বলবেন না। একটা মৃত মানুষকে গালি দিতে লজ্জা করে না? প্রত্যক্ষদর্শীরা অনেকেই বলছে তার কানে হেডফোন ছিলো না।

  9. তার মৃত্যু এভাবেই ছিল। আল্লাহ তাই নির্ধারন করে রেখেছিলেন। তবে সাবধান হয়ে চলা উচিত। তবে কিছু মানুষ নিজেকে নির্বোধের পরিচয় দেয়। তাই অযথা কথা বলে, ভাবে না সেই ছেলেটির পরিবারের কথা বাবামার কথা। আসলে নিজে সেই ব্যথা না পেলে বঝেনা অন্যের ব্যাথা কত খানি।

  10. এই রকম পরিস্থিতীতে ধৈর্য ধরা বাবামার জন্য খুব কঠিন। 🙁 তারপরও ধৈর্য ধরতে হবে। আল্লাহর কাছে দোয়া করতে হবে। আল্লাহ তার সব গুনাহ মাফ করো তাকে বেহেস্ত দান করো :(।

  11. মৃত্যু এভাবেই আসে আমাদেরকে তার জন্য প্রস্থুতি নিয়েই থাকতে হবে।

  12. খুব কষট হচেছ। ইন্না‌লিল্লা‌হে…অাল্লাহ তা‌কে জান্নাত বাসী করুন অামীন।

  13. এইচ,এস,সি রাজশাহী কলেজ পরীক্ষাহলে শিক্ষার্থী রসাথে খাতা দিতে দেরী করা নিয়ে কি কিচ্ছু লিখবেন না?

  14. jara bolchen ai vabe mora uchit chilo tara asolei abal chara kisuna….manuser mrittu onek vabei hote pare..Allah chaile apnr, amr o hote pare thik ai vabei..tai boli ojotha oprasongik kotha bole nijeder choto korben na..

  15. ওই ছেলেটি মনে মনে একটি হিসাব করছিল ট্রেন আসছিল এটি তার সরন ছিল না

Comments are closed.