গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ৫

চাঁপাইনবাবগঞ্জ রাজশাহী বিভাগ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে এক যুবতীকে গণধর্ষণ ও হত্যা ঘটনার তিন মাস পর মূলহোতাসহ পাঁচ ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে, জেলার সদর উপজেলার বাগডাঙ্গা গ্রামের শ্যামাপদ রবিদাসের ছেলে নয়ন রবিদাস (৩২), রতন রবিদাসের ছেলে নিতাই চন্দ্র (২৬), মৃত সচেন রবিদাসের ছেলে সুভাষ রবিদাস (৪২), বিরেন রবিদাসের ছেলে প্রশান্ত রবিদাস (২২) ও খোকন রবিদাসের ছেলে প্রশান্ত রবিদাস (২৪)।

ঘটনার মূলহোতা নয়ন রবিদাসকে ১৪ আগস্ট সোমবার গ্রেফতারের পর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী অপর চার ধর্ষককে মঙ্গলবার রাতে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা বুধবার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।
জানা গেছে, চলতি বছরের ১৪ জুন সদর উপজেলার মহারাজপুর মেলা নামক স্থান থেকে অজ্ঞাত এক যুবতীর লাশ উদ্ধার করে সদর মডেল থানা পুলিশ। এ ঘটনার তদন্ত করেন সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সদর ও শিবগঞ্জ সার্কেল) মতিউর রহমান সিদ্দিকী। পরে ওই যুবতীর নাম-পরিচয় জানা যায় এবং ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর গত ৯ আগস্ট মামলা রজু করা হয়। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে গণধর্ষণের পর হত্যার কথা উল্লেখ করা হয়।

এদিকে মামলা দায়েরের প্রায় এক মাস পর ওই যুবতীর মোবাইলের কললিস্টের সূত্র ধরে ঘটনার মূলহোতা নয়ন রবিদাসকে গত ১৪ সেপ্টেম্বর গ্রেফতারের পর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী অপর চার ধর্ষককে মঙ্গলবার গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা পুলিশকে জানায়, সদর উপজেলার কালিনগর বাবলাবোনা গ্রামের মফিজুল ইসলামের মেয়ে আয়েশা খাতুনের (২২) সঙ্গে নয়ন রবিদাস নিজেকে শামীম পরিচয় দিয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরে নয়ন আয়েশাকে বিয়ের কথা বলে ঘটনার দুদিন আগে বাড়ি থেকে রাজশাহী নিয়ে যায় এবং সেখানে তিনদিন অবস্থানের পর তাকে পাঁচ বন্ধু মিলে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ মহারাজপুর মেলা নামক স্থানে ফেলে রাখে।

রাইজিংবিডি