জঙ্গি আশরাফুল প্রকৌশলী নন, ছিলেন অনিয়মিত ছাত্র

গোদাগাড়ী রাজশাহী

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বেনীপুরে জঙ্গি আস্তানায় নিহত আশরাফুল ইসলাম বিএসসি প্রকৌশলী নন। তিনি গোদাগাড়ী ডিগ্রি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের অনিয়মিত ছাত্র ছিলেন। কলেজের অধ্যৰ আবদুর রহমান এমন তথ্যই জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আশরাফুল ২০১১ সালে বিজ্ঞান বিভাগে ডিগ্রি প্রথমবর্ষে ভর্তি হয়। ২০১৩ সালে সে প্রথম বর্ষের পরীৰাও দেয়। কিন’ এরপর থেকে অনিয়মিত হয়ে পড়ে। অনেক দিন কলেজে আসেইনি। তবে এ বছরের জানুয়ারিতে সে কলেজে এসে ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের পরীৰার জন্য ফরম পূরণ করেছিল। সে কলেজের অনিয়মিত ছাত্র।’

গত বৃহস্পতিবার বেনীপুরের জঙ্গি আস্তানায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের সময় দুই নারীসহ পাঁচজন আত্মহুতি দেয়। এদের মধ্যে আশরাফুল ছাড়া বাকি সবাই একই পরিবারের সদস্য। ওই আস্তানায় অপারেশন ‘সান ডেভিল’ শেষে পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক নিশার্বল আরিফ সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আশরাফুল একজন বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার এবং আইটি বিশেষজ্ঞ।

ওই দিন পুলিশ জানায়, আশরাফুলের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার দেবীনগর ইউনিয়নের চর চাকলা গ্রামে। তার বাবার নাম আবদুল হক। গোদাগাড়ী কলেজে ভর্তির ফরমে এবং ভর্তির সময় কলেজে জমা দেওয়া সব সনদ ও প্রশংসাপত্রেও আশরাফুলের এই ঠিকানা পাওয়া যায়।

আশরাফুলের কলেজে ভর্তির নথি থেকে জানা যায়, আশরাফুল ২০০৮ সালে দেবীনগর দাখিল মাদরাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে দাখিল পাস করেন। ২০১০ সালে তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ কামিল মাদরাসা থেকে জিপিএ-৪.৫০ পেয়ে আলিম পাস করেন। তার পড়াশোনার সবই বিজ্ঞান বিভাগে।

অনিয়মিত থাকাকালীন অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে আশরাফুল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াশোনা শেষ করতে পারে কী না, জানতে চাইলে গোদাগাড়ী কলেজের অধ্যৰ আবদুর রহমান বলেন, ‘এটি সম্ভব নয়। কারণ, আশরাফুলের সব সনদপত্রই আমাদের কলেজে জমা। তাই পুলিশ যে তথ্য দিয়েছে সেটি সঠিক নয়।’

জানতে চাইলে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমিত চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের ইন্টেলিজেন্সরা তথ্য দিয়েছেন, আশরাফুল বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার। সে তথ্যই সাংবাদিকদের দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ থাকলে আরও অনুসন্ধান করা হবে।’

চর চাকলায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তৃতীয় ছিলেন আশরাফুল। খুবই নিম্নবিত্ত পরিবারের ছেলে আশরাফুল। মাদরাসায় পড়াশোনা করার কারণে আগে আশরাফুল পাঞ্জাবি-পাজামা পরতেন। মুখে দাঁড়িও ছিল। তবে বছর খানেক আগে তিনি দাড়ি কেটে ফেলেন। পাঞ্জাবিও তেমন পরতেন না।

খবরঃ sonali sangbad