টানা তাপপ্রবাহে রাজশাহীর জনজীবন ত্রাহি অবস্থা

রাজশাহী

রাজশাহীতে শেষ গ্রীষ্মে রুদ্রমূর্তি ধারণ করেছে প্রকৃতি। আগুন ঝরা আবহাওয়ায় রোজাদারদের মধ্যে ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা দেখা দিয়েছে। সূর্যোদয়ের পর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত একই মাত্রায় তাপ নামছে। দীর্ঘ সময়ের রোজায় তাই একটু শীতল পরশের জন্য ব্যকুল হয়ে উঠেছে সাধারণ মানুষ।

যত দিন গড়াচ্ছে তাপমাত্রা ততই বাড়ছে। দিনভর সূর্যের অগ্নিবান আর লু হাওয়া, রাতে গোমট গরমে নাভিশ্বাস উঠেছে সবার। এক পশলা বৃষ্টির জন্য পদ্মা পাড়ের মানুষের মধ্যে হাহাকার পড়ে গেছে।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক নজরুল ইসলাম বলেন, এক সপ্তাহের বেশি সময় থেকে রাজশাহী অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৭ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ওঠানামা করছে।

তিনি জানান, এর মধ্যে শুক্রবার রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শুক্রবার সকাল ৬টায় বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯৬ শতাংশ এবং বিকেল ৩টায় ৫১ শতাংশ। এর আগের দিন বৃহস্পতিবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বশেষ গত ৩০ মে ৩ দশমিক ৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছিল। এরপর আর মেঘ-বৃষ্টির দেখা মেলেনি রাজশাহীর আকাশে।

ঢাকা আবহাওয়া অধিদফতরের বরাত দিয়ে রাজশাহীর ওই কর্মকর্তা আরও জানান, ২/৩ দিনের মধ্যে তাপমাত্রা কমার সম্ভাবনা নেই। বর্তমানে রাজশাহীর ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। আগামী সপ্তাহে বাংলাদেশে মৌসুমী বায়ু ঢোকার সম্ভাবনা রয়েছে। তখন মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে দেশে বৃষ্টিপাত শুরু হবে। এতে রাজশাহীর তাপমাত্রাও কমতে পারে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ১৯৪৯ সাল থেকে বাংলাদেশে তাপমাত্রার রেকর্ড শুরু হয়। এর মধ্যে ১৯৭২ সালের ১৮ মে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৪৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা। যা এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

এরপর ২০০০ সালে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ২০১৪ সালের ২৫ এপ্রিল রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তার পর তাপমাত্রা বাড়লেও এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ তাপমাত্রা আর ৪২ ডিগ্রি অতিক্রম করেনি।

এদিকে, সূর্যের তাপে বর্তমানে শরীরের চামড়া পুড়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এর মধ্যে বাতাসের আদ্রতা কমে যাওয়ায় তাপমাত্রা বেশি অনুভূত হচ্ছে। তীব্র রোদে পুড়ছে বরন্দ্রের মাটি।

খবরঃ বাংলানিউজ

1 thought on “টানা তাপপ্রবাহে রাজশাহীর জনজীবন ত্রাহি অবস্থা

Comments are closed.