নওগাঁয় সরকারী গাছ কাটা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১

নওগাঁ রাজশাহী বিভাগ

কিউ,এম,সাঈদ টিটো, নওগাঁ : নওগাঁর মহাদেবপুরে বুধবার সকালে হাতুর ইউপি’র মহিষবাথান গ্রোথ সেন্টার সংলগ্ন সোনালী ব্যাংকের পিছনে বিভিন্ন প্রজাতির ৭ টি গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আকবর গ্রুপ ও স্থানীয় শামসুর রহমান গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে শামসুর গ্রুপের বাবু (২৫) নামে একজন আহত হন। সে মহিষবাথান গ্রামের শফিজের ছেলে।

শামসুর সহ স্থানীয় গ্রামবাসী বকুল, টিক্কা, রাসেল, জাহাঙ্গীর ও মতিন অভিযোগ করে বলেন, চেয়ারম্যান গত ২৭ মে নাম মাত্র দাম দেখিয়ে কোন টেন্ডার ছাড়াই গাহলী গ্রামের মজিদের পুত্র সাইদুরের নিকট ৭ টি গাছ ৩১ হাজার ৫শ টাকায় বিক্রি করেন। কিন্তু গাছগুলোর অনুমানিক বাজার মূল্য ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা হবে বলে শামসুর সরকারের রাজস্বর কথা ভেবে ২৮ মে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন। নির্বাহী অফিসার সরেজমিন ছাড়াই ৪ জুন অভিযোগের শুনানী করে ঝরে পড়া গাছ কাটার অনুমতি দেন।

এর প্রেক্ষিতে চেয়ারম্যান আকবরের ক্যাডার হিসাবে পরিচিত মহিষবাথান গ্রামের মোজাফ্ফরের ছেলে লতিফ, সমাসপুর গ্রামের ইছাহাকের ছেলে আব্দুল মতিন, আয়েজ উদ্দীনের ছেলে আইনুল ও বিলশিকারী গ্রামের মৃত সাইদুর রহমানের ছেলে রিয়াদ এর নেতৃত্ব এক দল সন্ত্রাসীরা ওই গাছ গুলো কাটতে যান। এসময় বাবু বাধা দিতে গেলে তাকে মারধর করে আহত করে।
খবর পেয়ে গ্রামবাসীরা ছুটে এসে উপরোক্ত ৪ জনকে ইউনিয়ন পরিষদের পুরাতন ভবনে আটকে রাখেন। পড়ে থানা পুলিশ গিয়ে গাছ কাটা বন্ধ করে দেন। আটককৃতদের ছেড়ে দেন।

এ ব্যাপারে আকবরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি গাছ গুলোর টেন্ডারের বিষয় এড়িয়ে যান। আরোও বলেন, ইউএনও অর্ডার দিয়েছে তার কিছুই করার নেই। এব্যাপারে ইউএনও আমিনুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সকল নিয়ম মেনে টেন্ডার দেয়া হয়েছে। তারপরও গ্রামবাসীরা না চাইলে গাছ কাটা বন্ধ থাকবে।