নারী-শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে পরিবার থেকে কাজ শুরুর আহ্বান

রাজশাহী রাজশাহী বিভাগ

নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে পরিবার থেকেই কাজ শুরুর আহ্বান জানিয়েছেন রাজশাহী জেলা মহিলা পরিষদের নেত্রীরা।

‘নারী ও কন্যাশিশু প্রতিরোধ মাস ও আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ’ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (০৫ নভেম্বর) দুপুরে মহানগরীর মুক্তিযোদ্ধা পাঠাগারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানানো হয়।

সংবাদ সস্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কল্পনা রায়।

তিনি বলেন, সম্প্রতি নারী ও কন্যা শিশু নির্যাতনের ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে। পরিবারের পরিমণ্ডলেই তারা বেশী নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। ফলে নির্যাতন প্রতিরোধে পরিবার থেকেই কাজ শুরু করতে হবে।

গত অক্টোবর মাসে রাজশাহী জেলায় ৩৮ জন নারী ও শিশু বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এদের মধ্যে পরিবারেই নারী ও শিশু নির্যাতনের শিকার হন নয়জন।

সংবাদ সম্মেলনে নয় দফা দাবি তুলে ধরা হয়। এগুলো হলো- ধর্ষণকারীকে পারিবারিক ও সামাজিকভাবে বয়কট, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার অন্যতম বড় বাধা নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ, নারীর মানবাধিকার নিশ্চিত করা, নারী ও কন্যা শিশু নির্যাতনকারীদের রাজনৈতিক, সামাজিক ও প্রশাসনিক আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়া বন্ধ, পিতৃতান্ত্রিক সংস্কৃতি ও মূল্যবোধ যা নারী নির্যাতনের সংস্কৃতিকে সমর্থন করে তা প্রতিরোধ জাতীয় নীতি ও কর্মপরিকল্পনা নেওয়া, আন্তর্র্জাতিক সিডও সনদের অনুচ্ছেদ- ২ ও ১৬ (১)(গ) এর ওপর থেকে সংরক্ষণ প্রত্যাহার করে পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন, মামলার সাক্ষীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত, নির্যাতনের শিকার নারীর ডিএনএ টেস্টের ব্যয় রাষ্ট্রকে বহন করা ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধে বাংলাদেশে চলমান যে সব আইন রয়েছে তা সুষ্ঠুভাবে প্রয়োগ করা।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে জেলা মহিলা পরিষদের সভানেত্রী আবেদা রায়হান বুলি, আইন সহায়ক শিখা রায়, অর্থ সম্পাদক সেলিনা বানু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলানিউজ