নাশকতাকারীদের গ্রেফতার না করা পর্যন্ত বিজিবি মাঠে থাকবে

রাজশাহী

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেছেন, ‘এতদিন যারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় পেট্রোল বোমা হামলা চালিয়ে নাশকতা করেছে তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। সে সব সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় না আনা পর্যন্ত বিজিবি সদস্যরা মাঠে থাকবে।’

বৃহস্পতিবার সকালে মহানগরীর শালবাগানে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)-৩৭ ব্যাটালিয়ন সেক্টর কমান্ডারের সেমিনার কক্ষে গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে এক মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

বিজিবির মহাপরিচালক আজিজ আহমেদ আরও বলেন, বিজিবির মূলত পাঁচটি কাজ। দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা, সীমান্তে মাদক নিয়ন্ত্রণ করা, যুদ্ধে অংশগ্রহণ করা, অভ্যন্তরীণ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি রক্ষা করা ও সরকার যে কাজে বাহিনীকে ব্যবহার করবে সেই কাজ করা।

তিনি বলেন, আগামী দিনে বিজিবি কতদিন মাঠে থাকবে। সেই দিনগুলোতে বিজিবির কাজ কী হবে এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করতেই আমার এখানে আসা। সরকার যতদিন চাইবে ততদিন বিজিবি সদস্যদের মাঠে থাকতে হবে। এ বিষয় বিজিবি সদস্যদের মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে।

মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিজিবি রংপুর রিজিয়নের কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মাহফুজুর রহমান, বিজিবি-৩৭ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার কর্ণেল একেএম ফেরদৌসুল সাহাব।

সীমান্তে মাদক নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে বিজিবির মহাপরিচালক আজিজ আহমেদ বলেন, ভরতীয় বিএসএফ এর তুলনায় আমাদের বিজিবির সংখ্যা অনেক কম। আমাদের সীমান্তে প্রতি ১২ থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরত্বে বিওপি ক্যাম্প অবস্থিত। ভারতের মতও নেই কাঁটাতারের বেড়া। তবু অক্লান্ত পরিশ্রম করে বিজিবি সদস্যরা সীমান্তে মাদক নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। সীমান্ত দিয়ে আগে যেভাবে ফেন্সিডিল আসতো এখন তা আর আসে না। বর্তমানে দুই সীমান্ত রক্ষাকারী বাহিনীর মধ্যে সম্পর্কের অনেক উন্নয়ন ঘটেছে। ২০১৪ সালে অবৈধভাবে সীমান্ত পার হওয়া ৫৭৫ জনকে ফেরত নেয়ার পাশাপাশি ১৫০ জন ভারতীয়কেও ফেরত দেয়া হয়েছে বলে এ সময় উল্লেখ করেন বিজিবি মহাপরিচালক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.