পদ্মাসেতু নির্মাণে ব্যবহৃত হবে দেশি পাথর

জাতীয়

পদ্মাসেতু নির্মাণে দিনাজপুরের মধ্যপাড়া কঠিনশিলা খনির পাথর ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ। এতে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হওয়ার পাশাপাশি খনিটিও লাভজনক হবে বলে আশা করছেন বিশেষজ্ঞরা। পেট্রোবাংলার অধীনে দেশের একমাত্র এই পাথর খনি থেকে ২০০৫ সালে প্রথম পাথর উত্তোলন শুরু করে, মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি। ঐ সময় আশানুরূপ পাথর বিক্রি করতে না পারায় দুই শত কোটি টাকার বেশি লোকসান গুনতে হয়েছিলো, প্রতিষ্ঠানটিকে।

গত বৃহস্পতিবার সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একটি দল, পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ এবং চিনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা মধ্যপাড়া পাথর খনি পরিদর্শন করে দেশি পাথর ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেন।

নদী শাসন এবং মূল সেতু নির্মাণে আগামী চার বছরে প্রয়োজন হবে, ৬০ থেকে ৭০লাখ মেট্রিক টন পাথর। বর্তমানে মধ্যপাড়া খনি ইয়ার্ডে মজুদ রয়েছে, প্রায় চার লাখ মেট্রিক টন পাথর। এর মধ্যে মাত্র ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ পাথর সরবরাহ সম্ভব হবে দেশি খনি থেকে। বাকী চাহিদা মেটোনো হবে আমদানি করা পাথর দিয়ে।

চাহিদা অনুযায়ী পাথর প্রাপ্তির বিষয়ে সেতু কর্তৃপক্ষের মতই সংশয়ে রয়েছেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা। তবে চাহিদানুযায়ী পাথর সরবরাহ করা যাবে বলে আশা করছেন খনির কর্মকর্তারা। পদ্মা সেতুর নির্মাণে দেশি পাথর ব্যবহারের সিদ্ধান্তে লোকসান কাটিয়ে লাভের আশা করছে খনি কর্তৃপক্ষ।-ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি।