পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনে ছোড়া পাথরে রক্তাক্ত শিশু ইশানের অবস্থা গুরুতর

রাজশাহী

দুর্বৃত্তদের পাথর নিক্ষেপে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রেল পরিসেবা। ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় এই পথের যাত্রীদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে আতঙ্ক। এ রুটের নতুন চালু হওয়া বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনটিও চালুর দিনই দুর্বৃত্তদের পাথর হামলার শিকার হয়েছে। পাথর নিক্ষেপে ট্রেনটির আর্থিক ক্ষতিও হয়েছে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, গত এক মাসে এ রুটে চলাচলকারী ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ১৭টি ঘটনা ঘটেছে। তবে এ জন্য কাউকেও আটক করা যায়নি বা কোনো আইনিব্যবস্থাও নিতে পারেনি রেলওয়ে।

এদিকে সর্বশেষ গত রোববার সন্ধ্যার পর সিরাজগঞ্জের জামতৈল ও মনসুর আলী স্টেশনের মাঝামাঝি জায়গায় রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেনে দুর্বৃত্তদের পাথর নিক্ষেপে গুরুতর জখম হয়েছে ইশান নামের চার বছরের এক শিশু।

বাবা আবদুস সালামসহ পরিবারের সঙ্গে ইশানরা ঢাকায় যাচ্ছিল। শিশু ইশানের বাবা আবদুস সালাম জানান, ছোড়া পাথরের আঘাতে রক্তাক্ত ইশানকে ট্রেন থেকে নামিয়ে রোববার রাতেই রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরো সার্জারি বিভাগের ৩০নং ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। ওই রাতেই ইশানের মাথায় অস্ত্রোপচার করা হয়। শিশুটি এখনও আশঙ্কামুক্ত কিনা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না চিকিৎসকরা।

এদিকে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) খন্দকার শহীদুল ইসলাম শিশু ইশানকে দেখতে সোমবার দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান। তিনি শিশুটির পরিবারসহ তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জিএম হাসপাতালে উপস্থিত সাংবাদিকদের আরও জানান, রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী পথে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা বেড়ে গেছে। ফলে ট্রেন চলাকালীন জানালা বাধ্যতামূলকভাবে বন্ধ রাখার নির্দেশ জারি করা হয়েছে দায়িত্বরতদের। পাশাপাশি পাথর নিক্ষেপের মাধ্যমে জানমাল ও রাষ্ট্রীয় সম্পদের অনিষ্টকারী দুর্বৃত্তদের শিগগিরই চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি পদক্ষেপের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে রেলওয়ের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রেলযাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়ে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, এ পথে ট্রেনের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি রেলের যাত্রীও বেড়েছে। তবে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা চলতে থাকলে যাত্রীরা ট্রেনবিমুখ হয়ে পড়বে। এতে বরং সরকারই প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি দ্রুত পাথর নিক্ষেপকারীদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার জন্য রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ যুগান্তর