পরিবহণ ঠিকাদারদের ধর্মঘটের হুমকি

অন্যান্য খবর রাজশাহী রাজশাহী বিভাগ

রাজশাহী অঞ্চলের খাদ্য গুদাম শ্রমিকদের চাঁদাবাজী দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। এ ঘটনা থেকে পরিত্রাণ পেতে ধর্মঘটের হুমকি দিয়েছে পরিবহন ঠিকাদাররা। তিন দফা দাবিতে আগামী ১ জুলাই থেকে বিভাগের আট জেলায় লাগাতার ওই ধর্মঘট পালন করবেন তারা।

বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে সংকট নিরসনে সংশ্লিষ্টদের আহবান জানিয়েছেন ঠিকাদাররা। রোববার রাজশাহী বিভাগীয় খাদ্য পরিবহন ঠিকাদার সমিতির পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, খাদ্য গুদাম শ্রমিকদের অব্যাহত চাঁদাবাজী বন্ধের দাবিতে পরিবহন ঠিকাদাররা সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে বারবার অভিযোগ করে আসছেন। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।

সর্বশেষ গত ২৬ জুলাই খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, রাজশাহী আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দেন। এরপরও বিষয়টির সমাধান হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে চাঁদাবাজী ও হয়রানি বন্ধ, খাদ্য শস্যর গুণগতমান যাচাইয়ের অজুহাতে পরিবহন ঠিকাদারদের হয়রানি বন্ধ এবং খাদ্য গ্রহণের চালান বিধি সম্মত সময়ের মধ্যে প্রেরণ ও প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণের দাবিতে আগামী ১ জুলাই থেকে বিভাগের আট জেলায় খাদ্য শস্য পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে।

রাজশাহী বিভাগীয় খাদ্য পরিবহন ঠিকাদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম অভিযোগ করেন, শ্রমিকরা খাদ্য লোড-আনলোডের যে চাঁদা ঠিকাদারদের নিকট থেকে আদায় করেন, তার একটি বড় অংশ যায় ওই গুদামের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের পকেটে। তাদের মদদেই দিনের পর দিন খাদ্য পরিবহন ঠিকাদারদের হয়রানি করা হচ্ছে।

তিনি জানান, খাদ্য ট্রাকে উঠানো-নামানোর জন্য সরকার নিয়োগকৃত আলাদা শ্রমিক সরবরাহকারী ঠিকাদার আছেন। তারাই শ্রমিকদের পারিশ্রমিক দিয়ে থাকেন। তারপরেও পরিবহন ঠিকাদারদের নিকট থেকে এক প্রকার জোর করে বছরের পর বছর ধরে প্রতিদিন বিপুল অঙ্কের টাকা চাঁদা আদায় করা হচ্ছে।

গত ২০০৫ সাল থেকে ধারাবাহিক এ চাঁদাবাজি চলে আসছে বলে জানান তিনি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে এখনো এ সংক্রান্ত কোন অভিযোগ তিনি পাননি বলে জানিয়েছেন রাজশাহী আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক এসএম মহিসন। তবে খোঁজ নিয়ে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

সূত্রঃশীর্ষনিউজ