পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের ১৭১ গেটম্যান হঠাৎ চাকরিচ্যুত

রাজশাহী

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের ১৭১ গেটম্যানকে হঠাৎ চাকরিচ্যুত করায় চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে পশ্চিম রেলের প্রধান দফতরে। তারা প্রত্যেকেই দৈনিক মুজরি ভিত্তিক কর্মচারী ছিলেন। কয়েক মাসের বেতন পাওনা থাকলেও মাত্র ১৫ দিনের মজুরি দিয়েই চাকরিচ্যুত করা হয় তাদের।

চাকরিচ্যুত গেটম্যানরা অভিযোগ করে জানান, গত ১৩ জুলাই এক চিঠির মাধ্যমে তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়। তবে ঈদের আগের দিন শুক্রবার একযোগে ফোন করে বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়। ফলে কর্মস্থলে থেকে চাকরিচ্যুতির খবরে সবাই হতবাক হয়ে যান। ওই দিন প্রধান দফতরে গেলেও ছুটির কারণে কাউকেই পাননি তারা। চাকরি পুনর্বহালে ঈদের ছুটি শেষে রেলভবনে ধর্ণা দিচ্ছেন তারা।

এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে চাকরিচ্যুত কর্মচারীরা জানান, গেটম্যান পদে ১৭১ জন কর্মচারী ছিল। গত ১৭ জুলাই (ঈদের আগের দিন) পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী পরিমল কুমার বিশ্বাস তাদের সবাইকে ফোন করে জানান, ১৩ জুলাই থেকে তাদের চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। পরে তারা কর্মস্থলে দায়িত্ব পালন অবস্থায় রেলকর্তৃপক্ষের ফোনে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

মহানগরের ভদ্রা রেলগেটের চাকরিচ্যুত গেটম্যান একরাম হোসেন বলেন, তিনি ২০ বছর ধরে এই দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু স্থায়ী হতে পারেননি। রেলওয়ের কাছে তার চার বছরের মজুরি পাওনা আছে। এসব পাওনা পরিশোধ না করে মাত্র ১৫ দিনের মজুরি দিয়েই ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আগে থেকেই লোক নিয়োগ করায় দৈনিক মজুরিভিত্তিক কর্মচারিদের ছাঁটাই করা হয়েছে। এখন নতুনরা দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া ওয়েম্যানদের দিয়েও গেট পাহারা দেয়ানো হচ্ছে।

তবে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) খায়রুল আলম জানান, সাধারণত পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই গেটম্যানদের ছাঁটাই করা হয়। পরে তাদের আবার কাজে নেওয়া হয়। তাদের নিয়োগের শর্তই ছিল ‘কাজ নাই, মজুরি নাই’। তাদের আর কাজে নেওয়া হবে কি না তা বিবেচনার বিষয়। রেলওয়ের নিজেদের নিয়োগকৃত জনবল দিয়ে দায়িত্ব পালন করানো হবে বলে জানান তিনি।

শীর্ষ নিউজ