পুরো ফাঁকা চিরচেনা রাজশাহী নগর, ঘরে ঘরে মানুষ

রাজশাহী

করোনা সতর্কতায় সরকার ঘোষিত ছুটির প্রথমদিনে জনশূন্য হয়ে পড়েছে রাজশাহীর পথঘাট। সকাল থেকে টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে মাইকিংও করছেন সেনাসদস্যরা। জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক জানিয়েছেন, একজন মেজরের নেতৃত্বে সকাল থেকে সেনাসদস্যদের একটি টিম মাঠে রয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজশাহীর প্রাণকেন্দ্র সাহেব বাজার জিরোপয়েন্ট, নিউমার্কেট, শিরোইল বাসস্ট্যান্ড, শহীদ কামারুজ্জামান চত্ত্বর, বর্ণালী মোড়, লক্ষ্মীপুর মোড়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ঘুরে সাধারণ মানুষের উপস্থিতি একেবারেই কম দেখা গেছে। গণপরিবহন বন্ধ। নগরীতে রিকশা ও অটোর সংখ্যাও নগণ্য। সকল মার্কেট ও দোপানপাট বন্ধ। তবে খাবার. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যেন দোকান খোলা আছে। সিটি কর্পোরেশন এর তরফ থেকে নগরীর রাস্তায় জীবানুনাশক তরল গাড়ির মাধ্যমে ছিটানো হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আজ থেকে আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটির ঘোষণা দিয়েছে সরকার। গণপরিবহনসহ সব ধরনের পরিবহন চলাচল বন্ধ রেখেছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাজধানীসহ দেশের মানুষকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করার নির্দেশ দিয়েছে।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও মোড়ে টহল দেয় সেনাবাহিনীর কয়েকটি গাড়ি। এসময় জনসচেতনতা তৈরি মাইকিং করেন তারা। বিশেষ করে অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর হতে বের না হতে ও একজনের থেকে আরেকজনের নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রাখার আহ্বান জানান। একইসাথে করোনা সতর্কতায় স্বাস্থ্যবিধি সকলকে মেনে চলারও পরামর্শ দেয়া হয়।

এদিকে, মহান স্বাধীনতা দিবস হলেও কোনো আয়োজন নেই । বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, উচ্চস্বরে দেশাত্মবোধক গান বাজে। আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে ওঠেন সবাই। কিন্তু আজ মাইকের কোনো শব্দ নেই। নেই মানুষের পদচারণা। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের ভয়ে নিজেরাই সচেতন হয়ে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। সরকারিভাবেও প্রয়োজন ছাড়া ঘরেই অবস্থান করতে বলা হয়েছে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ দৈনিক সানশাইন