পুলিশি নৃশংসতা বিরোধী গানের জয়

বিনোদন

সর্বাধিক ১১টি মনোনয়ন নিয়ে এগিয়ে ছিলেন, পুরস্কারজয়েও এগিয়ে থাকলেন মার্কিন র‌্যাপার কেন্ড্রিক লামার। বিশ্বসংগীতের সবচেয়ে মর্যাদাসম্পন্ন আসর গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডসে একাই পাঁচটি পুরস্কার জিতেছেন তিনি।

কৃষ্ণাঙ্গদের আন্দোলনের কণ্ঠস্বর হিসেবে আবির্ভূত লামারের ‘অলরাইট’ গানটি আফ্রিকান-আমেরিকান নাগরিকদের ওপর পুলিশি নৃশংসতা বিরোধীদের অঘোষিত স্লোগানে পরিণত হয়েছে। এটি গ্র্যামিতে সেরা র‌্যাপ গান ও সেরা র‌্যাপ পারফর্ম্যান্স বিভাগে পুরস্কার পেয়েছে। এই গান নিয়ে প্রকাশিত ‘টু পিম্প অ্যা বাটারফ্লাই’ হয়েছে সেরা র‌্যাপ অ্যালবাম।

একই অ্যালবামের ‘দিস ওয়ালস’ গানটি পেয়েছে সেরা র‌্যাপ/সাং কোলাবোরেশন সম্মান। এতে লামারের সঙ্গে কাজ করেছেন বিলাল, আনা ওয়াইজ ও থান্ডারক্যাট। এ ছাড়া সেরা মিউজিক ভিডিও হয়েছে তার ও টেলর সুইফটের গান ‘ব্যাড ব্লাড’।

দুই বছর আগে গ্র্যামির জমকালো আসর থেকে শুন্য হাতে ফিরতে হয়েছিলো লামারকে। এবারের আসরে দু’হাত ভরে পেয়েছেন। র‌্যাপ কিংবদন্তি আইস কিউবের কাছ থেকে সেরা র‌্যাপ অ্যালবামের পুরস্কার নিয়ে ২৮ বছর বয়সী এই তারকা বলেন, ‘এটা হিপ-হপের জন্য। আমরা চিরদিন থাকবো, বিশ্বাস করুন।’

প্রয়াত পপসম্রাট মাইকেল জ্যাকসনের পরে একমাত্র শিল্পী হিসেবে গ্র্যামিতে একাই ১১টি মনোনয়ন পাওয়ার কৃতিত্ব দেখালেন লামার। তার হিপ-হপ গান গান ‘অলরাইট’ সং অব দ্য ইয়ার পুরস্কার জিতলে গ্র্যামির ৫৮ বছরের ইতিহাসে নতুন রেকর্ড হতো। আর ২০০৪ সালের পর প্রথম র‌্যাপার হিসেবে তিনি হতে পারতেন অ্যালবাম অব দ্য ইয়ার।

কিন্তু অ্যালবাম অব দ্য ইয়ার বিভাগে টেলর সুইফটের ‘নাইনটিন এইটি নাইন’ আর সং অব দ্য ইয়ার বিভাগে সবাইকে চমকে পুরস্কার জিতেছে এড শিরানের ‘থিংকিং আউট লাউড’। এটাই শিরানের প্রথম গ্র্যামি। রেকর্ড অব দ্য ইয়ার হয়েছে রিদমঅ্যান্ডব্লুজ গায়ক ব্রুনো মার্স ও প্রযোজক মার্ক রনসনের ‘আপটাউন ফাঙ্ক’। পুরস্কার হাতে ব্রুনো বলেছেন, ‘এটা উৎসর্গ করছি ভক্তদেরকে। মানুষ এই গানে না নাচলে আমরা এখানে আসতে পারতাম না।’ সেরা পপ দ্বৈত/দলীয় পারফর্ম্যান্স বিভাগেও সেরা হয়েছে গানটি।

অ্যালাবামা শেকস ব্যান্ড জিতেছে তিনটি পুরস্কার। তাদের ‘ডোন্ট ওয়ানা ফাইট’ সেরা গান ও সেরা রক পারফর্ম্যান্স হয়েছে। এ গান নিয়ে প্রকাশিত ‘সাউন্ড অ্যান্ড কালার’ পেয়েছে সেরা অল্টারনেটিভ মিউজিক অ্যালবামের সম্মান। দুটি পুরস্কার পেয়েছেন দ্য উইকেন্ড। সেরা আরবান কন্টেমপোরারি অ্যালবাম হয়েছে তার ‘বিউটি বিহাইন্ড দ্য ম্যাডনেস’ আর সেরা রিদমঅ্যান্ডব্লুজ পারফর্ম্যান্স হয়েছে কানাডিয়ান এই র‌্যাপারের গাওয়া ‘আর্নড ইট’ (ফিফটি শেডস অব গ্রে)।

সেরা নতুন শিল্পী হয়েছেন গায়িকা মেগান ট্রেইনর। ব্রিটিশ রক ব্যান্ড মিউজের ‘ড্রোনস’ পেয়েছে সেরা রক অ্যালবামের স্বীকৃতি। সেরা ট্র্যাডিশনাল পপ ভোকাল অ্যালবাম হয়েছে টনি বেনেট ও বিলি ক্রুডুপের ‘দ্য সিলভার লাইনিং: দ্য সংস অব জেরোমি কার্ন’। এ নিয়ে ১৮বার গ্র্যামি জিতলেন বেনেট। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন র‌্যাপার-অভিনেতা এলএল কুল জে।

গ্র্যামির মূল বিভাগের বিজয়ী তালিকা
রেকর্ড অব দ্য ইয়ার : আপটাউন ফাঙ্ক (মার্ক রনসন ও ব্রুনো মার্স)
সং অব দ্য ইয়ার : থিংকিং আউট লাউড (এড শিরান)
অ্যালবাম অব দ্য ইয়ার : নাইনটিন এইটি নাইন (টেলর সুইফট)
সেরা নতুন শিল্পী : মেগান ট্রেইনর
সেরা পপ সলো পারফর্ম্যান্স : এড শিরান (থিংকিং আউট লাউড)
সেরা পপ দ্বৈত/দলীয় পারফর্ম্যান্স : মার্ক রনসন ও ব্রুনো মার্স (আপটাউন ফাঙ্ক)
সেরা রক পারফর্ম্যান্স : অ্যালাবামা শেকস (ডোন্ট ওয়ানা ফাইট)
সেরা কান্ট্রি অ্যালবাম : ট্রাভেলার (ক্রিস স্ট্যাপলটন)
সেরা পপ ভোকাল অ্যালবাম : নাইনটিন এইটি নাইন (টেলর সুইফট)
সেরা রক অ্যালবাম : ড্রোনস (মিউজ)
সেরা র‌্যাপ অ্যালবাম : টু পিম্প অ্যা বাটারফ্লাই (কেন্ড্রিক লামার)
সেরা মিউজিক ভিডিও : ব্যাড ব্লাড (টেলর সুইফট ও কেন্ড্রিক লামার)
সেরা মিউজিক্যাল থিয়েটার অ্যালবাম : হ্যামিলটন
সেরা মিউজিক ফিল্ম : অ্যামি (অ্যামি ওয়াইনহাউস)
সেরা র‌্যাপ/সাং কোলাবোরেশন : কেন্ড্রিক লামার, বিলাল, আনা ওয়াইজ ও থান্ডারক্যাট (দিস ওয়ালস)
সেরা ট্রাডিশনাল পপ ভোকাল অ্যালবাম : দ্য সিলভার লাইনিং: দ্য সংস অব জেরোমি কার্ন (টনি বেনেট ও বিলি ক্রুডুপ)
সেরা র‌্যাপ সং : অলরাইট (কেন্ড্রিক লামার)
সেরা অল্টারনেটিভ মিউজিক অ্যালবাম : সাউন্ড অ্যান্ড কালার (অ্যালাবামা শেকস)
সেরা র‌্যাপ পারফর্ম্যান্স : কেন্ড্রিক লামার (অলরাইট)
সেরা রক সং : ডোন্ট ওয়ানা ফাইট (অ্যালাবামা শেকস)
সেরা রিদমঅ্যান্ডব্লুজ অ্যালবাম : ব্ল্যাক মেসিয়াহ (ডি’অ্যাঞ্জেলো অ্যান্ড দ্য ভ্যানগার্ড)
সেরা আরবান কন্টেমপোরারি অ্যালবাম : বিউটি বিহাইন্ড দ্য ম্যাডনেস (দ্য উইকেন্ড)
সেরা রিদমঅ্যান্ডব্লুজ পারফর্ম্যান্স : দ্য উইকেন্ড (আর্নড ইট, ফিফটি শেডস অব গ্রে)
সেরা রিদমঅ্যান্ডব্লুজ সং : রিয়েলি লাভ (ডি’অ্যাঞ্জেলো অ্যান্ড দ্য ভ্যানগার্ড)
সেরা ট্র্যাডিশনাল রিদমঅ্যান্ডব্লুজ পারফর্ম্যান্স : লালাহ হ্যাথাওয়ে (লিটল গেট্টো বয়)
সেরা ড্যান্স/ইলেক্ট্রনিক অ্যালবাম : স্ক্রিলেক্স অ্যান্ড ডিপলো প্রেজেন্ট জ্যাক ইউ (স্ক্রিলেক্স অ্যান্ড ডিপলো)
সেরা ড্যান্স রেকর্ডিং : হোয়্যার আর ইউ নাউ (স্ক্রিলেক্স অ্যান্ড ডিপলো ও জাস্টিন বিবার)
সেরা কান্ট্রি দ্বৈত/দলীয় পারফর্ম্যান্স : লিটল বিগ টাউন (গার্ল ক্রাশ)
সেরা কান্ট্রি সং : গার্ল ক্রাশ (লিটল বিগ টাউন)
সেরা র‌্যাপ/সং কোলাবোরেশন : কমন ও জন লিজেন্ড (গ্লোরি)
সেরা কান্ট্রি সলো পারফর্ম্যান্স : ক্রিস স্ট্যাপলটন (ট্রাভেলার)
সেরা ল্যাটিন রক/আরবান/অল্টারনেটিভ অ্যালবাম : ডেল (পিটবুল)
সেরা ল্যাটিন পপ অ্যালবাম : অ্যা কুইয়েন কুইয়েরা এসকুশার (রিকি মার্টিন)
স্কোর সাউন্ডট্র্যাক ফর ভিজ্যুয়াল মিডিয়া : বার্ডম্যান
সেরা ইঞ্জিনিয়ার্ড অ্যালবাম, নন-ক্লাসিক্যাল : সাউন্ড অ্যান্ড কালার (অ্যালাবামা শেকস)
মিউজিকেয়ারস পারসন অব দ্য ইয়ার : লায়োনেল রিচি

বাংলানিউজ-http://www.banglanews24.com/fullnews/bn/466192.html