প্রেমিকের বাড়িতে অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকার অনশন

গোদাগাড়ী রাজশাহী

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকা তার প্রেমিকের বাড়িতে অনশন শুরু করেছেন। অনশনরত ওই আদিবাসী নারী বর্তমানে দু’মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

উপজেলার চম্পকনগর গ্রামে প্রেমিকের বাড়িতে মঙ্গলবার (১২ মে) দুপুর থেকে ওই নারী অনশন শুরু করেন। তবে এর কয়েকদিন আগে থেকেই অভিযুক্ত যুবক পলাতক।

স্থানীয়রা জানায়, গোদাগাড়ীর মাটিকাটা ইউনিয়নের ভাজনপুর গ্রামের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ওই আদিবাসী ছাত্রীর (২১) সঙ্গে পার্শ্ববর্তী গোদাগাড়ী সদর ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামের বিষ্টপদের ছেলে প্রশান্ত পদের (২৫) প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। প্রেমের কে পর্যায়ে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হলে মঙ্গলবার দুপুরে প্রেমিক প্রশান্তর বাড়িতে হাজির হয়ে বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেন।

অনশনরত ওই নারী জানান, প্রায় পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে প্রশান্তর সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। এই সুযোগে প্রশান্ত বিভিন্ন স্থানে তার সঙ্গে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে। বর্তমানে তিনি দুই মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

ওই নারী আরও জানায়, অন্তঃসত্ত্বা হলে তিনি প্রেমিক প্রশান্তকে বিয়ের জন্য চাপ দিতে শুরু করেন। কিন্তু ১০ দিন আগে প্রশান্ত তার সঙ্গে সম্পর্কের কথা অস্বীকার করে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। এ কারণে তিনি বাধ্য হয়ে তার বাড়িতে গিয়ে অবস্থান নিয়েছেন।

প্রশান্তর মা মনোদা রানী বলেন, প্রায় ১০ দিন ধরে তার ছেলের সঙ্গে তাদের পরিবারের কারো যোগাযোগ নেই। এরই মধ্যে মেয়েটি গিয়ে তাদের বাড়িতে উঠেছে।

প্রশান্ত বাড়ি ফিরলে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান তিনি।

তবে ওই নারীর দাবি, প্রশান্তর পরিবারের সদস্যরাই তাকে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

প্রশান্তর সঙ্গে তার বিয়ে না হলে আত্মহত্যারও হুমকি দেন তিনি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম বলেন, ছেলে ও মেয়ের বাড়ি আলাদা দু’টি ইউনিয়নে। এ কারণে বিষয়টির সমাধান করা কঠিন হয়ে পড়েছে। তবু সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম আবু ফরহাদ জানান, বিষয়টি তাকে কেউ জানায়নি। অন্তঃসত্ত্বা ওই নারী অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।