প্রেমের ফাঁদে ফেলে রাজশাহীতে কিশোরীকে গণধর্ষণ

দুর্গাপুর রাজশাহী

প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক কিশোরীকে অপহরণের পরে ধর্ষণেরে অভিযোগ উঠেছে। ওই কিশোরীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে।

ওই কিশোরী দুর্গাপুর মহিলা কলেজের ছাত্রী। তিনি বাগমারা এলাকার আকবর আহম্মেদের মেয়ে। সে দুর্গাপুরের নানীর বাড়ি থেকে লেখা-পড়া করতো। কলেজে যাওয়ার সময় তাকে অপহরণ করা হয়। পরে ঢাকার সাভার আটকে রেখে গণধর্ষণ করে।

বিষয়টি নিশ্চত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাইমুল হাসান জানায়, ঢাকার সভার থেকে উদ্ধার করা হয়। বর্তমানে রামেক হাসপাতালে রয়েছে। এই ঘটনায় লিটন নামের একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

তিনি আরো বলেন, ওই কিশোরীর দাবি তাকে গণধর্ষণ করা হয়েছে। তার মেডিকেল পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া এই মামলায় তিনজকে আসামি করা হয়েছে। বাকি দুইজন পলাতক রয়েছে।

মেয়ের চাচা আশরাফুল ইসলাম বলেন, চলতি বছরের গত ২৪ আগস্ট (ঈদুল আজহা এর তিনদিন পরে) কলেজ যাওয়ার পথে এক কিশোরীকে অপহরণ করা হয়েছে। ৩৫ দিন নিখোঁজ ছিলো। তার পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে।

তিনি আরো বলেন, ভাতিজিকে রাজধানী ঢাকার সাভারের যে রুমে রাখা হয়েছিলো সেটি অন্ধকার। সেখানে কোন লাইটের ব্যবস্থা ছিলো না। এই রুমে আরো তিনজন কিশোরীকে আটকে রাখা হয়েছিলো থেকে। সেখানে তাকে কয়েকজন মিলে গণধর্ষণ করে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ ডেইলি সানশাইন