‘ফণী’ মোকাবিলায় রাজশাহীতে সতর্কতা জারি, ছুটি বাতিল

রাজশাহী

ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ মোকাবিলায় রাজশাহীতে সতর্কাবস্থা জারি করা হয়েছে। পাশাপাশি বাতিল করা হয়েছে পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত সব সরকারি ও আধা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি। এছাড়া দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার জন্য দু’টি আলাদা কন্ট্রোলরুম খোলা হয়েছে।

রাজশাহী জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে ‘ঘূর্ণিঝড় ফণী’ মোকাবিলায় করণীয় শীর্ষক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির এক জরুরি সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ মে) দুপুরে অনুষ্ঠিত ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক (ডিসি) এসএম আব্দুল কাদের।

সভায় রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের দিকে এগিয়ে আসছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ফণী। শেষ পর্যন্ত এর গতিপথ ঠিক থাকলে ভারতের পাশাপাশি বাংলাদেশেও আঘাত হানবে। এ কারণে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আজ থেকে পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত এই সতর্কাবস্থা জারি থাকবে।

আর সেই পর্যন্ত রাজশাহী জেলা প্রশাসনের সকল সরকারি ও আধা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া রাজশাহী সদর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের দক্ষদের সমন্বয়ে ২০ সদস্যের একটি কুইক রেসপন্স টিম গঠন করা হয়েছে। এই বিশেষ টিম মহানগর ও ক্ষেত্রবিশেষ জেলায় কোনো দুর্যোগময় পরিস্থিতি দেখা দিলে তা  মোকাবিলায় কাজ করবে। সতর্ক থাকবে ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্স ও তাদের স্বেচ্ছাসেবক দল। উদ্ধার কাজের জন্য রেডক্রিসেন্ট সোসাইটিও প্রস্তুত থাকবে বলেও জানান জেলা প্রশাসক।

জরুরি ওই সভা থেকে রাজশাহীর প্রতিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিজ নিজ এলাকায় ঘূর্ণিঝড় ফণী মোকাবিলায় সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়। বিষয়টি জানিয়ে সম্ভাব্য সব প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য পদ্মার তীরবর্তী ও সাধারণ মানুষকে প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়ে মাইকিং করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এসময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয় করে
মুড়ি, চিড়া, গুড়সহ বিভিন্ন শুকনো খাবার ও পর্যাপ্ত বিশুদ্ধ পানি রাখার জন্য সরকারি সব পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং সাধারণ মানুষের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। ঘূর্ণিঝড় নিয়ে ইমামদের মাধ্যমে মহানগর ও জেলার প্রতিটি মসজিদে শুক্রবার জুমার নামাজের পর সবাইকে সতর্ক করার জন্য ইসলামী ফাউন্ডেশনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

যে কোনো দুর্যোগময় পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য পর্যাপ্ত ওষুধ ও শুকনো খাবার মজুদ রাখতে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাজশাহী জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে আলাদা দু’টি কন্ট্রোলরুম পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত খোলা থাকবে বলেও জানানো হয়।

কন্ট্রোলরুমের নম্বর হচ্ছে: জেলা প্রশাসন-০৭২১-৭৭২৯৯০, মোবাইল ০১৭০০-৭১৬৭০২। জেলা পুলিশ- ০৭২১-৭৭৪৯৭৩, মোবাইল- ০১৭১৮-৭৮৫৫২৯। দুর্যোগকালীন পরিস্থিতি তৈরি হলে যে কোনো প্রয়োজনে কন্ট্রোলরুমের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের বলেন, কোনো জরুরি পরিস্থিতি তৈরি হলে দ্রুত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ সব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোকে দুর্যোগকালীন ব্যবস্থাপনা তৈরি এবং পুরোপুরি প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়। এছাড়া বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্য নেসকো, যোগাযোগ ব্যবস্থা ঠিক রাখার জন্য সড়ক ও জনপথ বিভাগ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবস্থাপনার জন্য জেলা শিক্ষা অফিস, নদী ও বাঁধ পর্যবেক্ষণের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডকে নির্দেশনা দেওয়া হয় ওই সভা থেকে।

সুপার সাইক্লন ‘ফণী’ মোকাবিলায় প্রয়োজন হলে রাজশাহীর সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে প্রস্তুত রাখার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক।

রাজশাহী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রুহুল আমিন ও রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহমুদুল হাসানসহ সরকারি প্রতিটি দফতরের শীর্ষ কর্মকর্তা প্রতিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, পানি উন্নয়ন বোর্ড, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়, জেলা শিক্ষা অফিস, ইসলামিক ফাউন্ডেশনসহ সংশ্লিষ্ট সকল দফতরের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ বাংলানিউজ২৪