ফেসবুক অ্যাপের মাধ্যমে ব্যক্তিগত তথ্য চুরি

তথ্য প্রযুক্তি

ফেসবুকের নিউজফিডে বেশ কয়েক দিন ধরে একটি অ্যাপ দেখা যাচ্ছে। অ্যাপটির মাধ্যমে একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী জেনে নিতে পারেন, ফেসবুকে তিনি কোন শব্দগুলো সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করেছেন। একাধিকবার ব্যবহৃত শব্দগুলো নিয়ে একটি ছবি তৈরি করা হয় এবং সবচেয়ে বেশিবার ব্যবহার করা শব্দগুলো মাঝখানে বড় আকারে প্রদর্শন করা হয়।

অল্প কয়েক দিনে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ‘মাই মোস্ট ইউজড ওয়ার্ডস অন ফেসবুক’ অ্যাপটি। অনেকেই জেনে নিচ্ছেন তাঁদের প্রিয় শব্দগুলোর কথা। কিন্তু কখনো কি ভেবেছেন, অ্যাপটি কীভাবে জানল আপনার ব্যবহৃত শব্দগুলোর ব্যাপারে? কী দেখে সে পরিমাপ করল? কারা আছে এর পেছনে?

কম্পেরিটেক-এর ওয়েবসাইটের একটি প্রতিবেদনে এ নিয়ে রীতিমতো বোমা ফাটালেন ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক পল বিশফ। তাঁর মতে, ছড়িয়ে পড়া অ্যাপটির মাধ্যমে এর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করছে এবং প্রয়োজনে বিক্রি করছে!

‘দ্য মোস্ট ইউজড ওয়ার্ড ফেসবুক কুইজ ইজ আ প্রাইভেসি নাইটমেয়ার’ শিরোনামে ইংরেজিতে লেখা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যখন কেউ পোস্টটিতে ক্লিক করে, জলদি জলদি তাকে প্রশ্ন করা হয়—সে অ্যাপটিকে তার প্রোফাইলে প্রবেশাধিকার দেবে কি না, যাতে করে অ্যাপটি সব পোস্ট দেখে সেগুলো বিশ্লেষণ করতে পারে।

কিন্তু একটি অ্যাপ যখন ব্যবহারকারীর প্রোফাইলে ঢোকার অনুমতি চায়, তখন এটি নিশ্চিত যে অ্যাপটি ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্যও সংগ্রহ করবে। তথ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে নাম, প্রোফাইল পিকচার, বয়স, লিঙ্গ, জন্মদিন, ঠিকানা, সমগ্র বন্ধুতালিকা, সব স্ট্যাটাস, আপলোড করা ছবি এবং এমনকি কোন কোন পোস্টে ব্যবহারকারীরা লাইক দিয়েছেন, সেটাও।

এমনকি অ্যাপের নিয়মাবলিতে বলা হয়েছে, কেউ যদি এই সেবা গ্রহণ করে, তবে তাঁর সব তথ্য সংগ্রহ করা হবে। যদি ফেসবুক বন্ধও করে দেয়, তবু তথ্যগুলো কখনো মুছে ফেলা যাবে না।

এনটিভি