বগুড়ায় নিহত জঙ্গি রিপনের মরদেহ নেবেন না রাজশাহীর স্বজনরা

রাজশাহী

বগুড়ার শেরপুরে পুলিশের সঙ্গে  ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত নতুন জঙ্গি সংগঠন ‘আনসার-রাজশাহী’র মাস্টারমাইন্ড আবু ইব্রাহীম ওরফে তারেক ওরফে রিপন ওরফে তানের (২৫) মরদেহ নেবেন না তার স্বজনরা। পুলিশকে এরই মধ্যে নিজেদের এই সিদ্ধান্তের কথা  জানিয়েছেন তারা।
রাজশাহী মহানগরের পাঠানপাড়া এলাকার ১৬৯ নম্বর বাড়িটি রিপনদের। রিপনের বাবা গোলাম সবুর ওরফে বাবলা মারা যাওয়ার পর তার দাদী তাকে তিনতলা এ বাড়িটি বানিয়ে দেন। রিপন থাকতেন নিচতলায়।
দ্বিতীয় তলায় পরিবার নিয়ে থাকেন তার চাচা আবদুস সালাম। আর তিনতলা ভাড়া দিয়েছেন রিপন। মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) দুপুরে সাংবাদিকরা বাড়িটিতে গেলে নিচতলা তালাবদ্ধ পাওয়া যায়।
পরে কথা হয় রিপনের চাচি বেবি বেগম ও চাচাত বোন তমা খাতুনের সঙ্গে। তারা জানান, জঙ্গি রিপনের মরদেহ তারা গ্রহণ করবেন না। রাষ্ট্রবিরোধী জঙ্গিকে নিজেদের আত্মীয় বলে পরিচয় দিতেও এসময় লজ্জা পান তারা। এড়িয়ে যান অনেক কথাও।
বেবি বেগম জানান, ছোটবেলায় রিপনের বাবা মারা যাওয়ার পর তার মা ঝর্ণা বেগম দ্বিতীয় বিয়ে করে চলে গেছেন। তিনি এখন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি হোস্টেলের আয়া হিসেবে চাকরি করেন। তিনিও ছেলের মরদেহ নিতে চান না। এছাড়া আত্মীয়-স্বজন যারা আছেন, তারাও কেউ মরদেহ নিতে আগ্রহী নন।
শহরের দরগাপাড়া এলাকার ৯২ নম্বর বাড়িটি রিপনের দুলাভাই হাফিজুর রহমানের। এ বাড়িতে গিয়ে কথা হয় রিপনের বোন সামিনা ফেরদৌস তিনার সঙ্গে।
তিনি জানান, রিপনের একমাত্র অভিভাবক বলতে গেলে এখন তিনিই। তবে তিনিও তার মরদেহ গ্রহণ করতে চান না। সোমবার (২৯ আগস্ট) রিপন বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার পরদিনই বিকেলে রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল তাকেসহ তার স্বামী হাফিজুর রহমান, চাচা আবদুস সালাম ও চাচাতো ভাই ইউসুফ আলীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের কার্যালয়ে নিয়ে যায়। তখনই তারা পুলিশকে রিপনের মরদেহ না নেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেন। পরে রাতে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।
উল্লেখ্য, সোমবার (২৯ আগস্ট) ভোরে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার বিশালপুরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জেএমবির সামরিক কমান্ডার বদর মামা ওরফে খালেদ মামা এবং আনসার রাজশাহীর মাস্টারমাইন্ড আবু ইব্রাহিম ওরফে তারেক ওরফে রিপন নিহত হন। ‘খালেদ মামা’র বাড়ি চাঁপাই নবাবগঞ্জের নাচোলে।
বগুড়ার শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এরফান আলী জানান, তাদের মরদেহ বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা আছে। কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে বুধবার(৩১ আগস্ট) তাদের মরদেহ দাফন করা হবে।

খবরঃ বাংলানিউজ