বাগমারায় ফেসবুকে প্রবাসীর স্ত্রীর ছবি ছাড়ায় যুবককে গণধোলাই

রাজশাহী

প্রবাসীর স্ত্রীর ছবি তুলে তা ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার ঘটনায় এক যুবক গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছে। উপজেলার ভবানীগঞ্জ বাজারে সোমবার সকালে কাচারীকোয়ালীপাড়া ইউনিয়নের জাঙ্গালপাড়া গ্রামের মকছেদ আলী(২৪) নামে এক যুবককে গণধোলাই দেওয়া হয়। সে পেশায় একজন মনোহারি দোকানী এবং ওই ইউনিয়নের জাতীয় পার্টির নেতা মোজাম্মেল হকের ভাতিজা বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গত ঈদুল ফিতরের দিন বাঘাবাড়ি এলাকার জনৈক সৌদি প্রবাসী যুবক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া তার স্ত্রীকে নিয়ে হুলিখালি ব্রীজ এলাকায় ঘুরতে যায়। তারা ব্রীজ এলাকায় ঘোরাঘুরি করে পাশ্ববর্তী খালে নৌকা নিয়েও বেশ কিছুক্ষন ঘোরাফিরা করে। এসময় তাদের পিছু নেয় জাঙ্গালপাড়া গ্রামের মনোহারি ব্যবসায়ী যুবক মকছেদ ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা।

তারা সৌদি প্রবাসী ওই যুবকের স্ত্রীকে বিভিন্ন ভাবে উৎতক্ত করে এবং মোবাইলে তার ছবি তুলে তা ফেসবুকে আপলোড করে। এ সময় সৌদি প্রবাসী যুবকটি ব্রীজ এলাকায় তার পরিচিত মহলে বিষয়টি জানিয়ে তাদের সহযোগিতা নিয়ে মকছেদ আলীকে ধরে তার মোবাইল ও ফেসবুক থেকে ছবিটি ডিলিট করতে বাধ্য করায়। এ সময় মকছেদ আলী ওই প্রবাসী যুবককে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে বাড়ি ফিরে যায়।

এই ঘটনার জের ধরে সৌদি প্রবাসী ওই যুবককে সোমবার ভবানীগঞ্জ কলেজ রোডে একা পেয়ে মকছেদ আলী ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা মারপিট শুরু করে। এ সময় কলেজ মোড়ের ব্যবসায়ী ও অন্যান্য লোকজন সৌদি প্রবাসী ওই যুবককে উদ্ধার করতে এসে মূল ঘটনা জানতে পেরে বখাটে মকছেদ আলীকে ধরে বেদম মারপিট শুরু করে।

এ সময় ভবানীগঞ্জ হাটে আগত জাঙ্গালপাড়া এলাকার লোকজন হট্রোগল শুনে এগিয়ে এসে তারাও মকছেদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। পরে ওই গ্রামবাসীর হাতে মকছেদ আলীকে সোপর্দ করা হলে তারা তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পৌছে দেয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাগমারা থানার ওসি নাছিম আহম্মেদ জানান, এটি তথ্য প্রযুক্তি আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ ডেইলি সানশাইন