‘বারসিক’ সম্মাননা পেলেন রাজশাহীর ২২ কৃষাণ-কৃষাণী

রাজশাহী

বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে বরেন্দ্র অঞ্চলের ২২ জন কৃষাণ-কৃষাণীকে সম্মাননা দিয়েছে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা বারসিক।

কৃষিখাতে বিশেষ অবদানের জন্য রোববার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে রাজশাহী সাধারণ গ্রন্থাগার চত্বরের মুক্তমঞ্চে তাদের এই সম্মাননা জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহীর অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার সুলতান আবদুল হামিদ। তিনিই কৃষাণ-কৃষাণীদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বরেন্দ্র কলেজের প্রভাষক ইফাত আরা রাকা, আদর্শ কৃষক কেএমএ মুকিদ দুলাল, রহিমা বেগম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সভা প্রধান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা শামসুদ্দিন মণ্ডল।

সম্মাননা পাওয়া কৃষাণ-কৃষাণীরা হলেন, চাঁপাইনবাগঞ্জের নাচোল উপজেলার বরেন্দা গ্রামের মনসুর আলী, টিকইল গ্রামের ভারতী রানী, খড়িবোনা গ্রামের মমতাজ বেগম ও আবদুল আজিজ।

রাজশাহীর তানোর উপজেলার হরিদেবপুর গ্রামের কবুলজান বেগম, বাহেরা গ্রামের আবদুল হামিদ ও গোকুল মাথুরা গ্রামের জিতেন্দ্রনাথ সূত্রধর। গোদাগাড়ী উপজেলার আলোকছত্র গ্রামের আবদুল মজিদ খান, মহিষালবাড়ি গ্রামের মোখলেসুর রহমান, সৈয়দপুর গ্রামের কেএমএ মুকিদ দুলাল, গোগ্রামের নাদিরা রশিদ ও মালাতি রানী। পবার বিলনেপালপাড়া গ্রামের শামসুল হক ও মজের আলী, দর্শণপাড়ার মেরিনা বেগম, বড়গাছি গ্রামের রহিম উদ্দিন সরকার ও রহিমা বেগম।

নওগাঁর মান্দা উপজেলার কালিগ্রামের শাহ কৃষি তথ্য পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা জাহাঙ্গীর আলম, নাদৌড় গ্রামের রাজিয়া সুলতানা, মহাদেবপুর উপজেলার বারবারাকপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা সামসুদ্দিন মণ্ডল, হাসানপুরের ইউনুসার রহমান হেবজুল ও নওগাঁ সদরের চক এনায়েতপুরের মহিদুর রহমান।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বারসিক’র বরেন্দ্র অঞ্চলের সমন্বয়কারী শহিদুল ইসলাম, রাজশাহী অঞ্চলের সমন্বয়কারী জাহিদ আলী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বারসিক’র সহযোগী গবেষক ইসমত জেরিন।

বাংলানিউজ