বিনোদন কেন্দ্রের দখল নিয়ে বিরোধ, রাজশাহীতে বিজিবি-কারা পুলিশের ধাক্কাধাক্কি

রাজশাহী

রাজশাহীতে ‘সীমান্তে অবকাশ’ নামে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) তৈরি করা একটি বিনোদন কেন্দ্রের দখল নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার কারা পুলিশের সঙ্গে বিজিবির ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটেছে।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ বলছে, তাদের জায়গায় বিজিবি কোনো অনুমতি ছাড়াই স্থাপনা নির্মাণ করেছে। আদালত তাদের পক্ষে রায় দিয়েছেন। অপরদিকে বিজিবির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, জায়গা তাদের হতে পারে কিন্তু বিজিবি সেখানে স্থাপনা তৈরি করে ফেলেছে। স্থানীয় সিদ্ধান্তে তারা এটা ছেড়ে যেতে পারে না।

প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিরা বলেন, দুপুর ১২টার দিকে কারা পুলিশ নগরের শ্রীরামপুর এলাকায় বিজিবির ‘সীমান্তে অবকাশ’ কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করতে যায়। এ সময় বিজিবির সদস্যরা তাদের ধাক্কা দিয়ে বের দেন। এরপর বিজিবি বিনোদন কেন্দ্রটির ভেতরে এবং কারা পুলিশ বাইরে অবস্থান নেয়। ফটক বন্ধ করে দেওয়ায় কারা পুলিশ ভেতরে ঢুকতে পারেনি। এরপর থেকে তারা বাইরে পাহারায় রয়েছে। আর ভেতরে রয়েছেন বিজিবির সদস্যরা।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের জ্যেষ্ঠ তত্ত্বাবধায়ক হালিমা খাতুন বলেন, জায়গাটি রাজশাহী কারা কর্তৃপক্ষের। বিজিবি এই জমিতে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করলে কারা কর্তৃপক্ষ বাধা দেয়। বিষয়টি নিয়ে ২০১৫ সালের ৪ অক্টোবর রাজশাহী জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে চিঠি দিয়ে বিজিবিকে স্থায়ী অবকাঠামো তৈরি না করার জন্য জানিয়ে দেওয়া হয়। আর কোনো স্থায়ী অবকাঠামো তৈরি করলেও তা অপসারণের নির্দেশ দেওয়া হয়। তারপরও তারা ‘সীমান্তে অবকাশ’–এর ভেতরে ‘সীমান্ত সম্মেলন কেন্দ্র’ নামের একটি দোতলা ভবন নির্মাণ করেছে। এ বিষয়ে গত ২২ জানুয়ারি জমির মালিকানা নিয়ে আদালত কারা কর্তৃপক্ষের পক্ষে রায় দিয়েছেন। হালিমা খাতুন বলেন, গতকাল তাঁর কর্মীরা সেখানে ডিউটি পালন করতে গিয়েছিলেন। বিজিবির সদস্যরা তাঁর সামনেই তাঁর কর্মীকে ধাক্কা দিয়েছেন। এখন তালা দিয়ে রেখেছেন। ভেতরে তাঁদের ঢুকতে দিচ্ছেন না। বাইরে কারা পুলিশ ডিউটি করছে।

জানতে চাইলে ৩৭ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক সোহেল উদ্দিন পাঠান বলেন, ২০১৪ সালে তাঁরা কাজ শুরু করেছেন, তখন বাধা দিলে তো তাঁরা এত কিছু করতেন না। এখন এত বড় স্থাপনা নির্মাণ করা হয়ে গেছে। এটি তাঁদের দখলে রয়েছে। এই মুহূর্তে কেউ এসে চলে যেতে বললেই তাঁরা যেতে পারেন না। স্থানীয় কোনো সিদ্ধান্তে এর ফয়সালা হবে না। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ফয়সালা আসতে হবে। তা ছাড়া বিজিবি সীমান্তবর্তী যেকোনো জায়গায় তাদের অস্থায়ী পোস্ট তৈরি করতে পারে। তারা এখন সীমান্ত সম্মেলন কেন্দ্রের ছাদকে পোস্ট হিসেবে ব্যবহার করছে। তিনি বলেন, কারা পুলিশের এখানে ডিউটি করার কোনো প্রয়োজন নেই। বিজিবি এখানে ডিউটি করছে। পর্যটকদের নিরাপত্তা দিচ্ছে। ধাক্কা দেওয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, তাঁর জায়গায় কেউ এসে তাঁকে চলে যেতে বললে তিনি তাঁকে চলে যেতে বলতেই পারেন।

খবরঃ প্রথম-আলো

7 thoughts on “বিনোদন কেন্দ্রের দখল নিয়ে বিরোধ, রাজশাহীতে বিজিবি-কারা পুলিশের ধাক্কাধাক্কি

  1. করার মুরদ নাই , রেডিমেট পাইছে আর খাইতে দোড় । এত দিন ধরে জায়গাটা পড়ে ছিল তখন কি কারাগারের আসেপাসে বাল চুলকাইতেছিল??

  2. আমাদেরদেশে কিছু বলদ আছে, কারারক্ষী আর পুলিশ এর তফাৎ জানেনা ।

Comments are closed.