বেকার দিন কাটছে রাজশাহী অঞ্চলের ১ লাখ কৃষিশ্রমিকের

রাজশাহী

চলছে বর্ষাকাল। এখন মৌসুম আমন রোপণের। কিন্তু পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত নেই। ফলে বরেন্দ্র অঞ্চলের লাখখানেক কৃষিশ্রমিক বর্তমানে বেকার।

পানির অভাবে চাষাবাদ শুরু না হওয়ায় এসব কৃষি শ্রমিক রাজশাহী নগরীতে কাজের সন্ধানে আসছেন। প্রতিদিন খুব সকালে নগরীর তিনটি পয়েন্টে প্রায় পাঁচ হাজার কৃষিশ্রমিক কাজের জন্য অপেক্ষা করেন। এরা সাধারণত নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন।

কিন্তু অধিকাংশেরই কাজ জোটে না। এর কারণ হিসেবে তারা বলছেন, যে পরিমাণ শ্রমিকের চাহিদা রয়েছে, তার বিপরীতে আগমন ঘটছে বেশি শ্রমিকের। ফলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বেশ কষ্টে দিনযাপন করছেন এসব শ্রমিকরা।

বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আমন মৌসুম শুরু হয় সাধারণত আষাঢ় মাসে। এর আগে শুরু হয় টিয়া আমন রোপণের কাজ। এ জাতের ধানচাষ শুরু হয় জৈষ্ঠ মাসে। এরই মধ্যে এ ধানের বীজতলা প্রস্তুত হয়েছে।

বীজতলা থেকে গাছ তুলে রোপণের সময় ২০ দিন আগেই পার হয়ে গেছে। কিন্তু বৃষ্টি না থাকার কারণে রোপণ কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি। আর এ ধানের রোপণ শুরু হলেই বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষকরা একাজে নেমে পড়েন। কিন্তু শুরু না হওয়ায় তারা বেকার হয়ে পড়েছেন।

প্রতিদিন নগরীর তিনটি এলাকায় শ্রমিকদের হাট বসে। এগুলো হলো- নগরীর কোর্টস্টেশন বাইপাস, লক্ষ্মীপুর এবং রেলগেট এলাকা। এ তিনটি স্থানে প্রতিদিন প্রায় পাঁচ হাজার শ্রমিকের সমাগম ঘটে। এ শ্রমিকদের মধ্যে গোদাগাড়ীর চব্বিশনগর এলাকার ভানপুর থেকে এসেছেন মজনুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘এ সময় আমরা টিয়া আমন ধান রোপণের কাজ করি। কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হয় না। কিন্তু এখন আমার মতো অনেকেই বেকার। শহরে এসে কাজ পাওয়ার চেষ্টা করছি। কিন্তু সপ্তায় তিনদিনের বেশি কাজ পাচ্ছি না।’

নগরীর লক্ষ্মীপুর পয়েন্টে পবার বড়গাছি এলাকা থেকে এসেছেন রবিউল ইসলাম। তিনি এলাকায় কৃষিশ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। কিন্তু চাষাবাদ শুরু না হওয়ায় কাজ নেই। তিনি বলেন, ‘টিয়া আমন রোপণ শুরু না হওয়ায় বেকার বসে আছি। এ কারণে শহরে এসেছি কাজ পাওয়ার জন্য। কিন্তু প্রতিদিন কাজ পাচ্ছি না। ফলে পরিবারেরর সদস্যদের নিয়ে চরম কষ্টের মধ্যে আছি।’

গত ২০ দিনে রাজশাহীতে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ সম্পর্কে রাজশাহী আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসে যোগাযোগ করে জানা গেছে, গত বছরের জুন মাসের প্রথম তিন সপ্তাহে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ছিলো ১৮৯ দশমিক মিলিমিটার। কিন্তু এ বছরের জুন মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের পরিমাণ মাত্র ৬২ মিলিমিটার।

এ ব্যাপারে রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহীর উপপরিচালক হযরত আলী বলেন, গত বছরের চেয়ে চলতি বছরের জুন মাসে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ অনেক কম। আর কম বৃষ্টির কারণে আমন মৌসুমে পানির সমস্যা হচ্ছে। এ কারণে চাষাবাদ শুরু করতে কিছুটা দেরি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

কৃতজ্ঞতা: রাইজিংবিডি