বেশ জমেছে রাজশাহীর পশুর হাট

রাজশাহী

কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে জমে উঠেছে রাজশাহীর পশুর হাটগুলো। ভারতীয় গরুর চেয়ে এবার হাটগুলোতে দেশি গরুর আমদানিই বেশি। দামও বেশ চড়া। ব্যবসায়ীরা বলছেন, সীমান্তে কড়াকড়ি এবং খেয়াঘাট ইজারাদার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক চাঁদাবাজির কারণে ভারত থেকে গরু-মহিষ আমদানিতে আগ্রহ হারিয়েছেন তারা। ফলে এবার পশুর হাটে কমেছে ভারতীয় গরুর আধিক্য।

রাজশাহীর সবচেয়ে বড় পশুর হাট শহরের সিটি হাট। এ হাটের ইজারাদার জানান, ভারত থেকে গরু না আসলেও এবার সমস্যা হবে না কোরবানির বাজারের। এ অঞ্চলের খামারিদের কাছে যে পরিমাণ গরু আছে, তাতেই মিটবে চাহিদা। তবে গরুর দাম একটু চড়া।

তিনি জানান, কোরবানি ঈদ ঘনিয়ে আসায় এখন প্রতিদিনই গরু উঠছে হাটে। সকাল থেকেই রাজশাহীর বিভিন্ন এলাকা থেকে হাটে গরু নিয়ে আসছেন বিক্রেতারা। ক্রেতারাও ভিড় করছেন হাটে। ক্রেতা-বিক্রেতার ভিড়ে পা ফেলার জায়গা নেই এই হাটে। পাইকারও আসছেন দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে। ভারতীয় গরু না আসায় এবার গরুর ভালো দাম পাচ্ছেন বিক্রেতারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তানোরের মুন্ডুমালা ও চৌবাড়িয়া, পুঠিয়ার বানেশ্বর এবং গোদাগাড়ীর কাঁকনহাটসহ জেলার সব পশুর হাটে এবার দেশি গরুর আধিক্য। গরুর পাশাপাশি ছাগল ও ভেড়া উঠছে হাটে। এরই মধ্যে হাটগুলো জমে উঠেছে। তবে মাঝে মাঝে বাগড়া বাধাচ্ছে বৃষ্টি। তারপরেও বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগমে মুখরিত থাকছে পশুর হাটগুলো।

রোববার দুপুরে রাজশাহী সিটি হাটে গিয়ে দেখা যায়, গরু নিয়ে হাটে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছেন বিক্রেতারা। ক্রেতারা আসছেন, জানতে চাইছেন দাম। দামে-দরে মিলে গেলে কিনছেন। তা না হলে দর কষাকষি করছেন আরেক বিক্রেতার সঙ্গে।

জেলার বাগমারা উপজেলার হাটগাঙ্গোপাড়া থেকে গরু কিনতে এসেছেন শফিকুল ইসলাম।
full_158631902_1472806091
তিনি জানান, প্রতিবছর তারা ৫ জন মিলে একটি করে গরু কোরবানি করেন। প্রায় তিন মণ ওজনের একটি গরু কিনতে তাদের ৪০ থেকে ৪২ হাজার টাকা লাগে। এবার ৫৫ হাজার টাকাতেও হাটে ওই ধরনের গরু পাওয়া যাচ্ছে না।

জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার সুলতানগঞ্জ এলাকার আরিফ মিয়া রাজশাহীর সিটি হাট থেকে গরু কিনে ঢাকার গাবতলী পশুর হাটে নিয়ে যান। তার অভিযোগ, গত কয়েক বছর দেশি গরুর এতো বেশি দাম ছিল না। গ্রাম থেকে গরু কিনে আনা বেপারিরা এবার হাটে অস্বাভাবিক দাম চাইছেন। ভারত থেকে গরু না আসায় এমনটি করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

তবে ক্রেতাদের এমন অভিযোগের পরেও থেমে নেই বেচা-বিক্রি। বেশি দামেই বিক্রি হচ্ছে দেশি গরু। ঈদ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে বেচাকেনা আরও বাড়বে বলে মনে করছেন ক্রেতা ও বিক্রেতারা।

দিকে ক্রেতা-বিক্রেতার ভিড়ে হাটে যাতে কেউ প্রতারিত না হন, সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতেখায়ের আলম জানান, হাটজুড়ে লাগানো হয়েছে সিসি ক্যামেরা। আর বেশকিছু স্থানে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। হাটে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন পুলিশ সদস্যরা। এ ছাড়া সাদা পোশাকে গোয়েন্দা ও ডিবি পুলিশের সদস্যরা পুরো হাটে সজাগ দৃষ্টি রেখেছে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ রাইজিংবিডি