বৈশাখী তাপদাহে পুড়ছে রাজশাহী

রাজশাহী

ক’দিন আগেও রাজশাহীর আকাশে ছিল মেঘের ঘনঘটা। বৃষ্টিও হলো দু’দিন। মেঘ আর বৃষ্টির আড়ালে সূর্যের তেমন তেজও ছিল না। কিন’ হঠাৎই পাল্টে গেল চিত্র। বৈশাখের মেঘ-বৃষ্টি আর ঝোড়ো হাওয়ার বদলে আকাশের সূর্য থেকে এখন ঝরছে আগুনঝরা উত্তাপ।

সূর্যের এ প্রখরতায় বাতাসের উত্তাপও বেড়েছে। বৈশাখী তাপদাহের ভ্যাপসা গরমে কাহিল হয়ে উঠছে রাজশাহীর জনজীবন। ঘরে কিংবা বাইরে, স্বস্তি মিলছে না কোথাও। এমন উত্তপ্ত পরিবেশে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছেন দিনমজুররা। ঠিকমতো কাজও করতে পারছেন না তারা।

জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার মা-ইল থেকে প্রতিদিন রাজশাহী মহানগরীতে নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করতে আসেন আদিবাসী নারী শ্রীদেবী ওরাও। মধ্যবয়সী এই নারীর ভাষায়, প্রচ- গরমে হাঁসফাঁস করছে প্রাণ। প্রতিনিয়ত শরীর থেকে ঝরছে ঘাম। খানিক পর পর পানি পান করেও মিটছে না পিপাসা।

এদিকে গরমের কারণে বেলা বাড়ার সাথে সাথে শহরের ব্যস্ত সড়কগুলো ফাঁকা হয়ে উঠছে। খুব জর্বরি কাজ ছাড়া কেউ বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন না। আবার যারা বের হচ্ছেন, তাদের অনেকেই ভিড় করছেন ফুটপাতের ঠা-া শরবত কিংবা ডাবের ভ্রাম্যমাণ দোকানগুলোতে। পথের ধারের শরবত স্বাস’্যকর কিনা, তা যাচাইয়ের চেষ্টাও করছেন না কেউ।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল শুর্ব হয়েছে ২৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস দিয়ে। সকাল ৬টার এই তাপমাত্রার সময় বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯৭ শতাংশ। কিন’ বেলা ১১টায় আদ্রতা নামে ৬৫ শতাংশে। তখন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর বেলা ৩টায় তাপমাত্রার পারদ ওঠে সর্বোচ্চ ৩৭ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এ সময় বাতাসের আদ্রতা ছিল মাত্র ৩৭ শতাংশ।

এর আগে গত বুধবার রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরও আগে গত রোববার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলো ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রোববার থেকে বুধবার ৪ দিনের  মধ্যে রাজশাহীর তাপমাত্রা বেড়েছে ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।  রাজশাহীতে সর্বশেষ বৃষ্টি হয়েছে গত শনিবার ২২ দশমিক ৬ মিলিমিটার।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, দু’একদিনের মধ্যে রাজশাহীতে সামান্য পরিমাণে বৃষ্টি হতে পারে। আবার না-ও হতে পারে। তবে আজ থেকে আগামী আরও দুই দিন আকাশ থাকবে মেঘলা। এই সময় বৃষ্টি না হলে বাড়বে ভ্যাপসা গরম। এতে দুর্ভোগ বাড়বে মানুষের।

তিনি জানান, প্রত্যাশিত বৈশাখের মৌসুমী বৃষ্টিপাত হলে তাপমাত্রা কমবে। আবার মৌসুমী বায়ু প্রবাহিত হলেও তাপমাত্রা কমবে। তবে বায়ুপ্রবাহ শুর্ব হতে আরও দুই থেকে তিন দিন লাগতে পারে। বৃষ্টি আর মৌসুমী বায়ুপ্রবাহ শুর্ব না হওয়া পর্যন্ত তাপমাত্রা আরও বাড়বে। এখন প্রাক বর্ষাকালের কারণে তাপমাত্রা বাড়ছে বলেও জানান আশরাফুল আলম।

খবরঃ sonali sangbad

4 thoughts on “বৈশাখী তাপদাহে পুড়ছে রাজশাহী

Comments are closed.