ভারতীয় আম রাজশাহীর বাজারে

রাজশাহী

মধু মাস আসার আগেই রাজশাহী মহানগরীর বাজারগুলোতে আগাম আম উঠতে শুরু করেছে। আমের পসরা সাজিয়ে রেখেছেন ফল ব্যবসায়ীরা। তবে এসব আম সবই ভারতীয়। ভারত থেকে এসব আম বিভিন্ন স্থলবন্দর দিয়ে রাজশাহীর বাজারে আসছে। যদিও রাজশাহী অঞ্চলের আম গাছগুলোতে শোভা পাচ্ছে আমের গুটি।

ভারতীয় আমের রং হালকা হলুদ ও লালচে ধরনের হয়। আকারে আমগুলো বেশ ছোট। প্রতিকেজি আম ১৮০ থেকে ২শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দাম বেশি হলেও বিক্রি হচ্ছে আম। আবার নতুন আম দেখে অনেকই অল্প হলেও কিনছেন।
ফল ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারতীয় আমের স্বাদ টকমিষ্টি ধরনের। তবে ভারত থেকে প্রতি বছরই এসময় ভারতীয় আমের মধ্যে পিএম, তোতা পাখি ও গোলাপ খাস আম পাওয়া যায়। তবে এখন শুধু পিএম জাতের আম বাজারে বেশি পাওয়া যাচ্ছে। নগরীর বিভিন্ন ফলের দোকানে বিক্রি হচ্ছে ‘ইন্ডিয়ান পিএম’ জাতের আম। তবে বাজারের সব ফলের দোকানে আম পাওয়া না গেলেও বেশ কয়েটি দোকানে আমের দেখা মিলবে।

শুধু তাই নয়, মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি জনবহুল স্থান সাহেববাজার, বাস টার্মিনাল, রেলগেট শহীদ কামারুজ্জামান চত্বর, লক্ষ্মীপুর, দৈনিক সানশাইন চত্তর, কোর্ট বাজার ও কাদিরগঞ্জ এলাকায় আম পাওয়া যাচ্ছে।

ইন্ডিয়ান আম কিনতে আসা ক্রেতা সেলিম রেজা বলেন, ফলের মধ্যে আম খেতে ভালোই লাগে। বছরের নতুন ফল, তাই একটু দাম বেশি হলেও কিনলাম বাড়ির জন্য। এছাড়া আমাদের দেশের আম আরো দুই থেকে তিন মাস পরে বাজারে পাওয়া যাবে। তাই আগেই ভারতীয় আমের স্বাদ নিতে চাচ্ছি। তাই আগ্রহ একটু বেশি।

নগরীর রেলগেটের কাউছার আলী, রতন কুমার, মান্নু ও দৈনিক সানশাইন মোড়ের ফল ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম জানান, আমাদের দেশে কেবল আমের গুটি ধরেছে। এখনো আম বড় হয়নি। তাই প্রত্যেক বছর দেশি আম বাজারে ওঠার আগেই ভারতীয় আম আমদানি হয়। ভারতীয় এসব জাতের আম টক মিষ্টি। আরাজান নামের আমগুলো খুবই মিষ্টি। দাম একটু বেশি হলেও ক্রেতারা আগ্রহ নিয়ে কিনছেন। কয়েকদিন হলো বাজারে এ আমগুলো আসা। তবে ক্রেতা বেশী কিনলেও বিক্রি হচ্ছে। কয়েকদিন পরে হলে ক্রেতার চাহিদা বাড়বে।

খবরঃ দৈনিক সানশাইন