মাসের শেষে বন্যার ঝুঁকিতে রাজশাহী

রাজশাহী

চলতি মাসের (আগস্ট) শেষের দিকে মৌসুমি বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের নদ-নদীগুলোর পানি বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে উত্তরাঞ্চল (রংপুর) কিংবা উত্তর-পূর্বাঞ্চলে (সিলেট) বন্যার আশঙ্কা না থাকলেও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে (রাজশাহী বিভাগ) বন্যার ঝুঁকি রয়েছে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) সতর্কীকরণ কেন্দ্রের ‘আগস্ট মাসের বন্যা পূর্বাভাস সম্পর্কিত সংক্ষিপ্ত প্রতিবেদন’ থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

দেশের মধ্যে ভারী বৃষ্টি এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে গত মাসে (জুলাই) দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, মধ্যাঞ্চলে বন্যা দেখা দেয়। কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাকের দাবি, এবারের বন্যায় ক্ষতির পরিমাণ সামান্য। জমিতে মূল ফসল না থাকায় ফসলের ক্ষতি তেমন নেই। তবে বীজতলার কিছুটা ক্ষতি হলেও আমন চাষে তেমন কোনো প্রভাব ফেলবে না। বন্যা মোকাবিলায় এবারের বাজেটে ১২০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

মঙ্গলবার বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্রের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশ ও ভারত আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী চলতি মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্র বেসিনের বাংলাদেশ ও কাছাকাছি ভারতীয় প্রদেশগুলোতে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা নেই। ফলে বর্তমান নদ-নদীর পরিস্থিতি বিবেচনায় চলতি মাসের শেষ নাগাদ ব্ৰহ্মপুত্র ও যমুনা নদ-নদীর অববাহিকায় বন্যার ঝুঁকি নেই।

rajshahi

‘তবে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলে মৌসুমি বৃষ্টিপাতের কারণে এ অঞ্চলের তিস্তাসহ অন্যান্য নদীর পানি সমতলে সাময়িকভাবে দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে, তবে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা নেই।’

বন্যা সতর্কীকরণ প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, চলতি মাসের তৃতীয় সপ্তাহে গঙ্গা বেসিনের ভারতীয় অংশে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে এ অঞ্চলের ভারতীয় অংশে গঙ্গা নদীর পানি সমতলে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে এ নদীর ভাটিতে বাংলাদেশের গঙ্গা অংশে পানি সমতলে বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা চলতি মাসের শেষ নাগাদ অব্যাহত থাকতে পারে।

চলতি মাসের শেষ নাগাদ গঙ্গা নদীর পানি সমতলে বৃদ্ধি পেয়ে রাজশাহী ও হার্ডিঞ্জব্রিজ পয়েন্টে বিপদসীমার কাছাকাছি বা স্থানবিশেষে সাময়িকভাবে বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। ফলে এ অঞ্চলের কুষ্টিয়া, পাবনা, নাটোর, রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার কতিপয় স্থানের নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদী বন্যার ঝুঁকি আছে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

বাংলাদেশ ও ভারতের আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, চলতি মাসের চতুর্থ সপ্তাহে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও কাছাকাছি ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আসাম ও মেঘালয় অংশে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। ওই সময়ে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদীর পানি সাময়িকভাবে দ্রুত বাড়তে পারে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ জাগোনিউজ২৪