রাকাব এর পরীক্ষা স্থগিতের প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

রাজশাহী
রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের (রাকাব) কর্মকর্তা পদের দ্বিতীয় শিফটের নির্ধারিত পরীক্ষা হঠাৎ স্থগিত করার প্রতিবাদে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন পরীক্ষার্থীরা। শুক্রবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে এ বিষয়ে প্রশাসন যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার  আশ্বাস দিলে পরীক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নেন।
 এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সড়ক অবরোধ করে পরীক্ষা স্থগিত ও অব্যবস্থপনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু করে পরীক্ষার্থীরা। ফলে ওই সড়কে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়।
 সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ভুলক্রমে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবনে পরীক্ষার্থীদের মাঝে সকালের শিফটে কিছু বিকেলের শিফটের প্রশ্ন দিয়ে দেয় কতৃপক্ষ। পরবর্তীতে বিষয়টি বুঝতে পেরে শুক্রবার সাড়ে ৩টায় নির্ধারিত পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। দুপুর আড়াইটার দিকে পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা দেয়া হয়। এতে দুর্ভোগে পড়েন পরীক্ষার্থীরা। রাকাবের এ পরীক্ষায় পুরো দায়িত্বে ছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের।
শুক্রবার দুপুর আড়াইটার দিকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে বিভিন্ন ভবনের সামনে উপস্থিত হন পরীক্ষার্থীরা। স্থগিতের খবর পাওয়ার পর তারা ভবনগুলোর সামনে অবস্থান করতে থাকেন। একপর্যায়ে বিকেল সোয়া ৩টার দিকে পরীক্ষা স্থগিত করা ও অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ শুরু করেন শতাধিক পরীক্ষার্থী। তারা মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে।
পরীক্ষার্থীরা কর্তৃপক্ষের কাছে ছয় দফা দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো হলো- পরীক্ষা স্থগিত করার কারণ দর্শাতে হবে, নিয়োগের সকল দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে, পরবর্তী পরীক্ষার জন্য যাতায়াত খরচ দিতে হবে, সকালের শিফটের অনুষ্ঠিত পরীক্ষা বাতিল করতে হবে, আজকের মধ্যেই (শুক্রবার) পরীক্ষার পরবর্তী সময়সূচি ঘোষণা করতে হবে, পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা সকল কর্মকর্তার পদত্যাগ করতে হবে।
 সিরাজগঞ্জ থেকে রাকাবের পরীক্ষা দিতে আসা সোহেল রানা বলেন, ‘কর্তৃপক্ষ আমাদের দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে অবরোধ প্রত্যাহার করেছি।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. তারিকুল হাসান বলেন, ‘পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। পরবর্তীতে পরীক্ষাগ্রহণসহ সার্বিক বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবে।’
 বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সভাপতি প্রফেসর জিন্নাত আরা বেগম বলেন, ‘শুক্রবার দুই শিফটে রাকাবের পরীক্ষা নেওয়ার কথা ছিল। প্রথম শিফটে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত বিজোড় রোলধারীদের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত দ্বিতীয় শিফটের পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ভুলবশত সকালের পরীক্ষায় বিকেলের প্রশ্ন দিয়ে দেওয়া হয়েছিল। বিষয়টি বোঝার সাথে সাথেই বিকেলের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে এ পরীক্ষা আবারও নেওয়া হবে।
 রাকাবের জনসংযোগ কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ সালাহউদ্দিন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী পরীক্ষাগ্রহণ ও ফল প্রকাশের সব দায়িত্ব ম্যানেজমেন্ট বিভাগের। তারাই এ ব্যাপারে বলতে পারবেন।’