রাজশাহীতে আরেকদফা বেড়েছে ছোলা ও চিনির দাম

রাজশাহী

পবিত্র রমজান মাসকে সামনে রেখে রাজশাহীতে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে আরেকদফা বেড়েছে ছোলা ও চিনির দাম। এদিকে পণ্যের দর নিয়ন্ত্রণে কাল থেকে রাজশাহীর বাজারে ৪টি পণ্য বিক্রি করবে টিসিবি।

গতকাল শনিবার রাজশাহী মহানগরীসহ এর উপকন্ঠের বাজার গুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পবিত্র রমজান মাসকে সামনে রেখে দেশের অন্যান্য স’ানের ন্যায় রাজশাহীর কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অতিরিক্ত মুনাফা লাভের মিশন নিয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন। যার প্রভাবে আরেকদফা বেড়েছে ছোলা ও চিনির দাম। গতকাল প্রতিকেজি ছোলা ৮৫ থেকে ১শ’, মসুর ডাল বড়দানা ৭০, ছোটদানা ১০৪ থেকে ১১০, মুগডাল বড়দানা ১১০, ছোটদানা ১৩০, ছোলার ডাল ৯৫ থেকে ১০৫, এংকর ডাল ৪০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। অথচ এক সপ্তাহ আগে ছোলা ও ডাল কেজিতে ৫ টাকা কম দামে বিক্রি হয়েছে। এছাড়াও সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে চিনির দাম। ৬৫ টাকার চিনি এখন প্রতিকেজি ৬৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে রমজান মাসে নিত্যপণ্যের দর নিয়ন্ত্রণে টিসিবি আগামীকাল সোমবার থেকে রাজশাহীতে ৪টি পণ্য বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে। তারা প্রথম অবস’ায় ছোলা, মসুর ডাল, চিনি ও সয়াবিন তেল বিক্রি করবে। নগরীর গুর্বত্বপূর্ণ পয়েন্টে প্রতিদিন ৫টি ট্রাকে (প্রতি ট্রাকে ১৫০০ কেজি) এই ৪টি পণ্য বিক্রি করা হবে। দাম নেয়া হবে প্রতিকেজি ছোলা ৭০ টাকা, মসুর ডাল ৮০ টাকা, চিনি ৫৫ টাকা ও সয়াবিন প্রতি লিটার ৮৫ টাকা। টিসিবির রাজশাহী আঞ্চলিক অফিস প্রধান প্রতাপ কুমার বলেন, রাজশাহী মহানগরীতে ৫টি ও বিভাগের অন্যান্য জেলা সদরে প্রতিদিন ২টি করে ট্রাক মাল বিক্রি করবে। এছাড়া মহানগর, জেলা ও উপজেলার ডিলাররা তাদের দোকানে টিসিবির এই পণ্যগুলো বিক্রি করবে।

এদিকে গতকাল সয়াবিন (খোলা) প্রতি লিটার ৮০ টাকায় এবং বোতলজাত ১০০ থেকে ১০৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। গতকাল প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১৪৫, সোনালী ১৯০ এবং দেশি ৩৩০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। আটা খোলা ২১/২২ এবং প্যাকেট আটা ৩০/৩১ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এছাড়া গতকাল প্রতিকেজি ছোটমাছ নাম ভেদে ১শ’ থেকে ৬শ’, রুই-কাতলা ১৫০ থেকে ২৮০, সিলভার কার্প ১শ’ থেকে ১৮০, পাংগাস ১৩০, ইলিশ ৭শ’ থেকে ১৪শ’ টাকায় বিক্রি হয়েছে। গতকাল প্রতিকেজি গরুর মাংস ৪৫০ থেকে ৫শ’, খাসির মাংস ৬শ’ থেকে ৭শ’ টাকায় বিক্রি হয়েছে। প্রতিহালি সাদাডিম ২৪ ও লালডিম ২৬ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

এদিকে গতকাল খুচরা বিক্রেতারা প্রতিকেজি পেঁয়াজ ২৫ টাকায়, টমেটো ৩০, গাজর ৩০, প্রতিকেজি আলু ১৪, বেগুন ২৫, পটল ৩০, শশা ৩০, বিভিন্ন রকম শাক ১৫ থেকে ২০, পেঁপে ২০, মিস্টি কুমড়া ২০, করোলা ৬০, প্রতিটি লাউ-কুমড়া ১৫, প্রতিহালি কলা ১৬, লেবু ১২, আদা ৮০, রশুন নতুন ৮০, সজিনা ৪০, ঢেড়স ৩৫, কাঁচা মরিচ ৪০ টাকায় বিক্রি করেছে।
এদিকে বোরো মৌসুমের নতুন চাল বাজারে আসলেও দাম কমছেনা। গতকাল খুচরা বাজারে প্রতিকেজি মোটাচাল ( গুটিস্বর্ণা) ৩৯ থেকে ৪০, চিকন বা সুমন স্বর্ণা/ পারিজা ৪২/৪৪, আটাশ চাল পুরাতন ৫০ থেকে ৫২, নতুন ৪৮/৪৯, মিনিকেট ৫৩ থেকে ৫৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

খবরঃ sonali sangbad

7 thoughts on “রাজশাহীতে আরেকদফা বেড়েছে ছোলা ও চিনির দাম

Comments are closed.