রাজশাহীতে ‘গ্রিন উইমেন’র স্বপ্ন দেখা একজন ফারজানা

রাজশাহী

‘‘কাল রাজশাহী যাচ্ছি ‘গ্রিন উইমেন’র এর ‘ডোনেট অ্যা প্যাড ফর অ্যা উইমেন’’ এর দ্বিতীয় ক্যাম্পিং এর জন্য। ২৬ অক্টোবর রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার মহিলা বিষয়ক অধিদফতরে যারা নারী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন, তাদের নিয়ে আমাদের এবারের কর্মসূচি।’’

রোববার (২৩ অক্টোবর) ফেসবুক টাইম লাইনে এমনই স্ট্যাটাস দিয়েছেন ফারজানা সিরাজ।

ফরাজানা সিরাজ, যিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একক চেষ্টায় গড়ে তুলেছেন ‘গ্রিন উইমেন (Green Women)’।

এ ক্যাম্পেইনের মূল সংগঠকও তিনি। বাড়ি বৃহত্তর কুষ্টিয়া জেলার চুয়াডাঙ্গায়। থাকেনও সেখানে। তবে স্বপ্ন দেখেন গোটা দেশের পিছিয়ে পড়া নারীদের উন্নয়নে।

জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের ভার্চুয়াল শক্তি, নিজের সাহস ও কিছু স্বপ্নবাজ সহযোগীর উৎসাহ নিয়ে এগিয়ে চলেছেন এই উদ্যোমী নারী।

ফেসবুক ‘গ্রিন উইমেন’ ক্যাম্পেইনের ইতিকথা প্রসঙ্গে ফারজানা সিরাজ বলেন, যৌথ পরিবারেই তার বেড়ে ওঠা। শুরুতে অনেক ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে আসতে হয়েছে।

ছাত্রাবস্থায় সংবাদমাধ্যমে নারীদের জরায়ু ক্যানসার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন পড়েন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজির স্নাতকোত্তর ফারজানা সিরাজ।

নারীর অসচেতনতা, কুসংস্কার এ ক্যানসার প্রতিরোধের অন্যতম বাধা বলে ওই প্রতিবেদনে জানতে পারেন তিনি। এরপর এ নিয়ে শুরু করেন বিস্তর পড়াশোনা।
গরিব ও নিরক্ষর পরিবারের মেয়েদের পিরিয়ডকালে অসচেতনতার অভাবে এ ক্যানসার বাসা বাধে।

আর রোগের চিকিৎসার জন্যে যেটুক টাকা লাগে তাও যোগাড় করা এসব নারীর পক্ষে অসম্ভব। তাই অকালে প্রাণ হারান অসংখ্য নারী।

‘কিন্তু একটু সাহস ও আত্মবিশ্বাস থাকলেই এ সমস্যা থেকে উত্তরণ সম্ভব।’ বলেন তিনি।

ফারজানার ভাষায়, নারী স্বাস্থ্য নিয়ে বিভিন্ন বিষয় জানার পরই সিদ্ধান্ত নিই-ফেসবুকে নারীর যৌনস্বাস্থ্য বিষয়ক ক্যাম্পেইন শুরু করবো।

ক্যাম্পেইনে যে অর্থ সংগৃহীত হবে, তা দিয়ে সুবিধাবঞ্চিত কর্মজীবী নারীদের স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারে সচেতনতা সৃষ্টি করা হবে। আর তা বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে।

চলতি অক্টোবরে ফেসবুকে ‘গ্রিন উইমেন’ শীর্ষক এ ক্যাম্পেইনের স্লোগান দেওয়া হয় ‘ডোনেট অ্যা প্যাড ফর অ্যা উইমেন’।

ফারজানা বলেন, শুরুর দিকে ভেবেছিলাম, হয়তো তেমন একটা সাড়া পাবো না। কিন্তু পরে তার বন্ধুদের সাড়া দেখে অবাক হয়ে যাই।

এরপর গ্রিস, সুইডেন প্রবাসী অনেকেই আগ্রহ দেখান। এ উদ্যোগে সঙ্গী হন ফারজানা সিরাজের মা হাসিনা মমতাজও। এগিয়ে আসেন তার ফেসবুক বন্ধু মোস্তাফিজুর রহমান রবিন, হোসেন হৃদয়, কাব্যিক রবি।

বর্তমানে এখন তারা মাঠ পর্যায়ে কাজ করার জন্য সরাসরি সহযোগিতা করছেন বলে জানান ফারজানা।

প্রথম পর্যায়ে গাজীপুরের মৌচাক এলাকার একটি  তৈরি পোশাক কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা হয় তাদের। সে অনুযায়ী ওই কারখানার কর্মীদের মধ্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন বিতরণ করা হয়।

পরের কর্মসূচি রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে। ২৬ অক্টোবর নারীর যৌনস্বাস্থ্য সচেতনতা বিষয়ে আলোচনাও অনুষ্ঠিত হবে সেখানে।

সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে ফারজানা সিরাজ বলেন,  ‍পরবর্তীতে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হবে রংপুর ও খুলনায়।

‘গ্রিন উইমেন’ ক্যাম্পেইন প্রসঙ্গে সংগঠক ফারজানা সিরাজ বলেন, সবুজ হচ্ছে সুস্থতার প্রতীক। তাই নারী হবে শুদ্ধ, সুস্থ ও উচ্ছ্বলতার প্রতীক।

‘তাই নারী সদা সবুজ, ঝলমলে ও সুস্থ থাক‍ুন’ এটাই উদ্দেশ্য গ্রিন উইমেন’র।

খবরঃ বাংলানিউজ