রাজশাহীতে জেলের জালে উঠে এলো সৈকতের মরদেহ

চারঘাট রাজশাহী

প্রতিবেশীদের সঙ্গে গোসল করতে গিয়ে পানিতেই তলিয়ে গিয়েছিল সৈকত। একদিন পানিতে তলিয়ে থাকার পর শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে জেলের জালে উঠে এলো ৮ বছরের শিশু সৈকতের মরদেহ। পরে পরিবার গিয়ে মরদেহ সনাক্ত করে।

বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাজশাহীর চারঘাটে বড়াল নদীতে গোসল করতে নেমে ডুবে যায় সে।

সৈকত রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার ভায়ালক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামের মাইনুল ইসলামের ছেলে। সে সরদহ সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিলো। তার বাবা মাইনুল ইসলাম পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এসআই) হিসেবে রাজশাহী মহানগরীর মতিহার থানায় কর্মরত আছেন।

নিহতের বাবা মাইনুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে প্রতিবেশীদের সঙ্গে বাড়ির পাশে বড়াল নদীতে গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ হয় সৈকত। এ সময় প্রতিবেশীদের সংবাদের ভিত্তিতে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল সেখানে পৌঁছে দুপুর ৩টা থেকে উদ্ধার কাজ শুরু করে। সন্ধ্যা পর্যন্ত উদ্ধার কাজ করেও শিশু সৈকতের কোনো হদিস পাওয়া যায়নি।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে স্থানীয় জেলেদের জালে আটকে যায় শিশু সৈকতের মরদেহ। পরে মরদেহটি তোলা হয়। খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা ঘটস্থলে গিয়ে শিশু সৈকতের মরদেহ সনাক্ত করে।

খবরঃ বাংলানিউজ

2 thoughts on “রাজশাহীতে জেলের জালে উঠে এলো সৈকতের মরদেহ

Comments are closed.