রাজশাহীতে ধুম পড়েছে ‘ফ্রিজ’ বিক্রির

রাজশাহী

আর মাত্র ক’দিন পরেই পবিত্র ঈদ-উল-আজহা। ঈদে আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় কোরবানির পশু কেনাতে মনোযোগ থাকে সামর্থ্যবানদের।

এর পরেই নতুন পোশাকের পাশাপাশি মানুষের আরও বেশি আগ্রহ থাকে ফ্রিজে। বিশেষ করে যাদের ঘরে পণ্যটি নেই। তাই ঈদে কেনাকাটার তালিকায় অনেকের কাছেই কোরবানির পশুর পর দ্বিতীয় চাহিদায় থাকে ফ্রিজ। এমন ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখে বিভিন্ন অফার দিয়েছে ফ্রিজ কোম্পানিগুলোও।

রাজশাহী মহানগরীতে চলতি সপ্তাহে ফ্রিজ কেনার ধুম পড়ে গেছে। এ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা। মহানগরীর সাহেব বাজার কেন্দ্রীক শো-রুমগুলোতে এখন বেশি ভিড় দেখা যাচ্ছে। বিভিন্ন কোম্পানির শো-রুম ঘুরে দাম পরখ করে সবাই সেরা পণ্যটিই কিনছেন পরিবারের জন্য।

ফলে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে মহানগরীর ওয়ালটন, মারসেল, এলজি বাটারফ্লাইসহ বিভিন্ন ইলেট্রনিক্স শো-রুমে বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি কেনা-বেচা জমে এই সময়টায়।

রাজশাহী মহানগরীর সাহেব বাজার এলাকার একটি শো-রুমে ক্রেতা শেফালি রহমান বলেন, একটি ফ্রিজ শুধু দৈনন্দিন গৃহস্থালির প্রয়োজন মেটায় না, গৃহের সৌন্দর্য্য বর্ধনেও ভূমিকা রাখে।

যে ফ্রিজ দামে কম এবং টেকসই সেসব ফ্রিজেরই কদর বেশি। যাচাই-বাছাই করে কেনা ক্রেতাদের কাজ। এছাড়া কোরবানির সময় ফ্রিজে নানান ধরণের অফারের সুবিধার কথাও জানান তিনি।

রাজশাহী সাহেব বাজার শাখার একটি কোম্পানির ম্যানেজার কাজি সিরাজুল ইসলাম জানান, নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে মধ্যবিত্ত ও বিত্তশালী লোকজনের মাঝেও চলছে সাধ্যমত ইলেক্ট্রনিক পণ্যের কেনা-কাটা।

এলজি বাটার ফ্লাই-এর সাহেব বাজার শাখার অ্যাসিটেন্ট ম্যানেজার সানজিদা পারভীন জানান, ঈদে স্ক্র্যাচ কার্ডে বিভিন্ন পণ্যের ওপর আনন্দ অফার রয়েছে। নিম্নে ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০% পর্যন্ত ফ্রি রয়েছে। ঈদকে সামনে রেখে রেফ্রিজেটর, কালার টিভি, ওভেন-এর উপর মানুষের চাহিদা বেশি।

তবে বাজারে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির পাশাপাশি বিভিন্ন নতুন কোম্পানির আগমনে প্রতিযোগিতা বেড়েছে। তবুও কোরবানির ঈদকে ঘিরে ফ্রিজের চাহিদাটা শীর্ষে। তাই কেনা-বেচা ভালোই হচ্ছে বলে জানান তিনি।

খবরঃ বাংলানিউজ