রাজশাহীতে নতুন প্যানেল মেয়র নির্বাচন

রাজশাহী

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের বিশেষ সাধারণ সভায় গতকাল রোববার নতুন করে প্যানেল মেয়র নির্বাচন করা হয়েছে। সভায় দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র মো. নিযাম উল আযীম সভাপতিত্ব করেন।
সিটি করপোরেশন থেকে বলা হয়েছে, আগের প্যানেল মেয়ররা পদত্যাগ করায় নতুন করে এই নির্বাচন করা হয়েছে। তবে আগের প্যানেল মেয়ররা বলছেন, তাঁরা পদত্যাগ করেননি। তাঁরা বলেন, দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র আদালত কর্তৃক অবৈধ ঘোষণার পর তিনি কোনো সাধারণ সভা আহ্বান করতে পারেন না। গতকাল সিটি করপোরেশনের সাধারণ সভায় ১ নম্বর প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র মো. নিযাম উল আযীম, ২ নম্বর প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর এ কে এম রাশেদুল হাসান এবং ৩ নম্বর প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন ১ নম্বর সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর তাহেরা বেগম।
২০১৩ সালের ১৫ জুন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনের পর প্রথম সাধারণ সভায় ১ নম্বর প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হন ২৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ারুল আমিন আযব, ২ নম্বর প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হন ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূরুজ্জামান টিটো ও ৩ নম্বর প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হন ৯ নম্বর সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর নূরুন্নাহার বেগম।
দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র নিযাম উল আযীম দাবি করেন, ৩ নম্বর প্যানেল মেয়র নূরুন্নাহার গত ২৯ মার্চ এবং অপর দুজন প্যানেল মেয়র ৩০ মার্চ পদত্যাগ করেছেন। প্যানেল মেয়রের পদগুলো শূন্য হওয়ায় নতুন প্যানেল মেয়র নির্বাচন করা হয়েছে।
নির্বাচিত মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের বিরুদ্ধে করা মামলার এজাহার আদলতে গৃহীত হওয়ায় সিটি করপোরেশন আইন অনুযায়ী ২০১৫ সালের ৭ মে তাঁকে বরখাস্ত করা হয়। এরপর জুনের শুরুতে সিটি করপোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নিজাম উল আযীমকে সিটি করপোরেশনের সব আর্থিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনা করার ক্ষমতা দেওয়া হয়।
প্যানেল মেয়র না হওয়া সত্ত্বেও নিযাম উল আযীমকে মেয়রের দায়িত্ব দেওয়ায় ৩ মার্চ তাঁর নিয়োগকে অবৈধ ঘোষণা করেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশন। ৬ মার্চ ওই আদেশের কপি সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা হাতে পান।
নতুন করে প্যানেল মেয়র নির্বাচনের ব্যাপারে নিযাম উল আযীম বলেন, আগের তিনজন প্যানেল মেয়র পদত্যাগ করায় নতুন করে নির্বাচন করতে হয়েছে। তা ছাড়া সিটি করপোরেশনের ৪৬ ধারা অনুযায়ী সিটি করপোরেশন যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারে।
তবে আগের ১ নম্বর প্যানেল মেয়র আনোয়ারুল আমিন গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা কেউ পদত্যাগ করেননি। আদালত দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়রকে অবৈধ ঘোষণা করায় তিনি আর সাধারণ সভা আহ্বান করতেই পারেন না। তাঁরা পাল্টা সভা ডেকে এই সিদ্ধান্তকে মুলতবি ঘোষণা করে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে কপি পাঠাবেন।

প্রথম আলো-http://www.prothom-alo.com/bangladesh/article/818920/%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%B9%E0%A7%80%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%A8%E0%A6%A4%E0%A7%81%E0%A6%A8-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%B2-%E0%A6%AE%E0%A7%87%E0%A6%AF%E0%A6%BC%E0%A6%B0-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%9A%E0%A6%A8