রাজশাহীতে পুলিশের গাড়িতে হামলার ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার ৫

রাজশাহী

রাজশাহীতে পুলিশ কর্মকর্তার গাড়িতে হামলার ঘটনায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নগরীর রাজপাড়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আব্দুল মালেক বাদী হয়ে দ্রুত বিচার আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন।

শনিবার (০২ জানুয়ারি) বিকেলে রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. শামসুদ্দিন মামলার বিষয়টি জানান।

মামলায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্র লীগের ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৩০/৩৫ জনকে আসামি করা হয়। এর মধ্য এজাহার নামীয় আজাদ নামের এক আওয়ামী লীগ নেতাসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বিকেলে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, শনিবার বেলা পৌনে ১টার দিকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন, সহ-সভাপতি মীর ইকবাল ও নওশের আলী, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মাহাতব হোসেন চৌধুরী, সদস্য ও রাসিকের ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামারুজ্জামান কামরুসহ আওয়ামী লীগ নেতারা পুলিশ কমিশনার মো. শামসুদ্দিনের সঙ্গে দেখা করতে পুলিশ সদর দফতরে যান।

সেখানে আলোচনা শেষে তারা বেরিয়ে আসেন। সিঅ্যান্ডবি মোড়ে নেতাকর্মীদের আশ্বস্ত করে তারা মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ফিরে যান।

প্রসঙ্গত, থার্টিফার্স্ট নাইটে পুলিশ লাইন হাসপাতালের সামনে পিকনিক থেকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে ছাত্রলীগের কয়েকজনকে ধরে নিয়ে যায় রাজপাড়া থানা পুলিশ। তবে তাদের থানায় ছাড়াতে গিয়ে আটক হন ওই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিমাদ্রি প্রসাদ লিটনও।

রাত সাড়ে তিনটার দিকে অন্য আওয়ামী লীগ নেতারা থানায় গেলে পুলিশ তাদের সবাইকেই ছেড়ে দেয়। ওই ঘটনার প্রতিবাদে শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল থেকে হামলা চালিয়ে মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনারের গাড়ি ভাঙচুর করে আওয়ামী লীগ, যুব লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও কেই আহত হননি। ঘটনার পর পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় ৪ জন আহত হন।