রাজশাহীতে প্রতি বস্তা চালে ৩০০ টাকা বেশি নেয়ায় ৬০ হাজার টাকা জরিমানা

রাজশাহী

৫০ কেজির প্রতি বস্তা মোটা চাল রাজশাহীর পাইকারি বাজারে দেড় হাজার টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা। কিন্তু বর্তমানে করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে প্রতি বস্তায় ৩০০ টাকা বাড়িয়ে এক হাজার ৮০০ টাকা নিচ্ছিলেন রাজশাহীর এক চাতাল মালিক।

সোমবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে আবুল হোসেন নামের ওই চাতাল মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। আবুল হোসেন নগরীর মোল্লাপাড়া এলাকায় আবদুস সালামের চাতাল ভাড়া নিয়ে চাল ব্যবসা চালিয়ে আসছিলেন। ওই ব্যবসীর অপরাধ প্রশ্রয় দেয়ায় চাতালের মূল মালিক আবদুস সালামকেও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম বলেন, বাজারে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাড়তি দাম নেয়ার অভিযোগ পেয়ে অভিযান চালানো হয়।

jagonews24

ওই সময় হড়গ্রাম বাজারের এক খুচরা বিক্রেতার কাছে চাতাল মালিক আবুল হোসেন প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) স্বর্ণা চাল এক হাজার ৮০০ টাকা বিক্রি করেন। কিন্তু বাজার মূল্য অনুযায়ী প্রতি বস্তা চালের দাম দেড় হাজার টাকা। পরে আবুল হোসেনের খোঁজে মোল্লাপাড়ায় মেসার্স আবদুস সালাম ট্রেডার্স নামে একটি চাতালে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সেখানে মিলের মালিক আবদুস সালাম জানান, চাল ব্যবসায়ী আবু হোসেন তার চাতাল ভাড়া নিয়ে চাল উৎপাদন করেন। এ ঘটনায় আবুল হোসেন ও আবদুস সালাম দুজনকেই জরিমানা করা হয়। আগামীতে এই ধরনের কর্মকাণ্ড বিরত থাকারও নির্দেশ নেয়া হয় তাদের।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আরও বলেন, হড়গ্রাম বাজারে নিত্যপণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে। তবে কয়েক ব্যবসায়ী আদা, পেঁয়াজ ও আলুর দাম কয়েক টাকা করে বেশি নেয়ায় কঠোরভাবে সতর্ক করা হয়েছে। করোনা ইস্যুতে ব্যবসায়ীরা যাতে পণ্যের দাম বাড়াতে না পারে সে লক্ষ্যে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ জাগোনিউজ২৪