রাজশাহীতে বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই করছে পদ্মার পানি

রাজশাহী

গত কয়েক বছরের রেকর্ড ভেঙে রাজশাহীতে বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই করছে পদ্মার পানি। গত এক সপ্তাহে প্রায় ৯০ সেন্টিমিটার পানি বেড়েছে।

শুক্রবার (২৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় রাজশাহী পয়েন্টে পদ্মার পানির উচ্চতা ছিলো ১৮ দশমিক ৩১ মিটার। ১৮ দশমিক ৫০ মিটার থেকে বিপদসীমা শুরু হওয়ায় রাজশাহীতে আতঙ্কে রয়েছে মানুষ।

হুমকির মুখে শহর রক্ষা বাঁধও। নতুন করে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে প্লাবিত হচ্ছে পদ্মা পাড়ের নিম্মাঞ্চল।

বুলনপুর এলাকায় শহর রক্ষা বাঁধের নিচে পদ্মার তীর রক্ষা প্রকল্পের চারটি স্থান সামন্য দেবে গেছে। বালির বস্তা ফেলে মাটি ধরে রাখার চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মীর মোশাররফ হোসেন জানান, ভারতের বন্যার প্রভাব ও ফারাক্কার গেট বেশি খুলে দেওয়ায় পদ্মায় হঠাৎ করে পানি বাড়ছে। এক সপ্তাহ থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ১২ থেকে ১৩ সেন্টিমিটার পানি বাড়ছে।

তিনি আরও বলেন, চলতি বর্ষা মৌসুমে গত ৪ আগস্ট পদ্মায় সর্বোচ্চ পানি বেড়ে দাঁড়‍ায় ১৭ দশমিক ২৫ মিটার, এরপরে পানি কমতে শুরু করে। গত ১২ আগস্ট ১৬ দশমিক ৭০ মিটারে নেমে যায়।

গত ১৭ আগস্ট থেকে ফের পানি বাড়তে শুরু করে। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পদ্মায় পানির উচ্চতা বেড়ে দাঁড়ায় ১৮ দশমিক ৩১ মিটারে। এভাবে পানি বাড়লে আগামীকালের (শনিবার) মধ্যে বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এদিকে, পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তলিয়ে যাচ্ছে পদ্মার উভয় তীরের নিম্মাঞ্চল। তলিয়ে যাচ্ছে গাছ, স্থাপনা, বাড়ি-ঘর, স্কুল ও খেত খামার। ভাঙনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পবা উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম। বুধবার ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন স্থানীয় এমপি আয়েন উদ্দিন।

এছাড়া পবা উপজেলার হরিয়ান ইউনিয়নের চর তারানগর, চরখিদিরপুর, দিয়াড় খিদিরপুর, চর তিতামারী, দিয়াড় শিবনগর, চরবৃন্দাবন, কেশবপুর, চর শ্রীরামপুর ও চর রামপুরের সিংহভাগ জমি এরই মধ্যে পদ্মাগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে।

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেসুর রহমান জানান, ভাঙনের বিষয়টি নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে। আজ সকালে রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধের টি-গ্রেয়েনে পদ্মার পানি প্রবেশ মুখ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বাঁধের উপর দিনে জনসাধারণের চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যানবাহন চলাচল বন্ধ করতে নিয়মিত পুলিশ পেট্রোলিংয়ের ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শহর রক্ষা বাঁধ রক্ষা ও ভাঙন পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার (২৭ আগস্ট) জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হবে।

খবর: বাংলানিউজ২৪

19 thoughts on “রাজশাহীতে বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই করছে পদ্মার পানি

  1. পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের জবাব দিতে হবে রাজশাহী শহরের কিছু হলে???? রাজশাহী শহর রখ্খা বাঁধ বাবদ স্বাধীনতার পর থেকে ২০১৬পর্যন্ত সরকার রাজশাহী পদ্মার হাত থেকে রখ্খা করার জন্য কত টাকা দিয়েছেন এবং সে টাকা দিয়ে কতটুকু, রাজশাহীকে রখ্খার কাজ করছেন রাজশাহী বাসী জানতে চায়।

Comments are closed.