রাজশাহীতে মায়ের বকুনি খেয়ে ৭ম শ্রেণির ছাত্রীর আত্মহত্যা

দুর্গাপুর রাজশাহী

দুর্গাপুর উপজেলার পানানগর গ্রামে প্রেমিকের সাথে ঘুরতে যাওয়ায় মায়ের বকুনি খেয়ে ববি খাতুন (১৩) নামের এক স্কুল ছাত্রী বিষপানে আত্মহত্যা করেছে। ববি খাতুন পানানগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। সে ওই গ্রামের টিপু ওরফে পটু হোসেনের কন্যা বলে জান গেছে। ববির মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, গত বৃহস্পতিবার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয় ববি। পরে পরিবারের লোকজন খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন পুঠিয়া উপজেলার ভালুকগাছী গ্রামের এক যুবকের সাথে প্রেমের সম্পর্ক থাকায় তার ঘুরতে গেছে ববি। বিকেলের দিকে বাড়ি ফিরে আসলে ববির মা ববিকে গালমন্দ শুরু করে। এর কিছুক্ষণ পরেই বাড়ির সকলের অগোচরে বিষপান করে ববি। এরপর প্রতিবেশীদের সহযোগীতায় ববিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হলেও চিকিৎসাধীন অবস্থায় ববি মারা যায়। ববির বাবা টিপু ওরফে পটু বিদেশ থাকেন। ববির বড় বোন রাজশাহী শহরে থকে লেখাপড়া করেন। এ কারণে ওই বাড়িতে শুধু মা-মেয়ের বসবাস ছিল।

দুর্গাপুর থানার এস.আই মজিবুর রহমান জানান, মায়ের বকুনি খেয়ে ববি বিষপানে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে। ববির মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

খবরঃ দৈনিক সানশাইন 

3 thoughts on “রাজশাহীতে মায়ের বকুনি খেয়ে ৭ম শ্রেণির ছাত্রীর আত্মহত্যা

Comments are closed.