রাজশাহীর পরিচিত প্রতিষ্ঠান ‘বিশাল ফাস্টফুড’ এর মুখরোচক ‘চিকেন সাসলিকে’ মজেছেন ক্রেতারা

রাজশাহী

সুঁচালো কাঠিতে মুরগির মাংসের গাঁথুনি। ভাঁজে ভাঁজে রয়েছে ছোট কিউব করে কাটা পেঁয়াজ, লাল টমেটো ও সবুজ রঙের ক্যাপসিকাম। স্বাদ বাড়াতে ওপরে ছিটানো মজাদার সব মসলা। গরম তাওয়ায় তেলের ওপর ভেজে থরে থরে সাজিয়ে রাখা হয়েছে স্টিলের ট্রে’র ওপর। পাশ দিয়ে হাঁটলেই সুবাস এসে নাকে লাগছে। ভাবুন যার দর্শন আর সৌরভেই এত আকর্ষণ তা খেতে কতটাই না সুস্বাদু ও মজাদার!

রোজায় ইফতারের বাজারে এ একটি আইটেম দিয়েই বাজিমাত করেছে রাজশাহীর পরিচিত প্রতিষ্ঠান ‘বিশাল ফাস্টফুড’। তাদের অন্য ইফতার আইটেমও কাছে টানছে ক্রেতাদের।

রমজান উপলক্ষে রাজশাহী মহানগরীর প্রাণকেন্দ্র সাহেব বাজার জিরোপয়েন্ট ও এর আশপাশে অস্থায়ীভাবে গড়ে উঠেছে রকমারি সব ইফতার সামগ্রীর বাজার। দোকানদারা অনেকেই তাদের নিজস্ব তৈরি আকর্ষণীয় খাবার আইটেম দিয়েই  সবশ্রেণীর ক্রেতাদের নজর কাড়তে চাইছেন। মৌসুমী এ ব্যবসায় তাই পিছিয়ে নেই রাজশাহীর পুরনো প্রতিষ্ঠান বিশাল কনফেকশনারি ও ফাস্টফুড। দুপুর গড়াতেই তারা পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসছেন। বেচাকেনা চলছে সন্ধ্যা পর্যন্ত।

কথা বলে জানা যায়, বিশালের ইফতার পণ্যের মধ্যে সেরা আকর্ষণই হচ্ছে গরম গরম ‘চিকেন সাসলিক’। তাই বিভিন্ন বয়সের ক্রেতারা ইফতারে চিকেন সাসলিকের স্বাদ নিতে ভিড় করছেন বিশালে। সুস্বাদু ও মুখরোচক এ আইটেম প্রতিপিস বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়। ইফতার মাহফিলের জন্য যাদের পরিমাণে বেশি লাগছে তারা একদিন আগেই অর্ডার দিয়ে যান। পরদিন দুপুরের পরপরই তাদের চাহিদামত প্যাকেটজাত করা চিকেন সাসলিক সরবরাহ করছে প্রতিষ্ঠানটি।

এর পাশাপাশি ক্রেতাদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে চিকেন শর্মা ৭০ টাকা ও চিকেন পরোটা ৫০ টাকা। আর ইফতারের বক্স অর্ডার করলে তার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে জালি কবাব, বেগুনি, পিঁয়াজু, আলুর চপ, জিলাপি, বুট, খেজুর, পানি, ম্যাঙ্গো জুস, শশা ও কলা। যার অর্ডার মূল্য ১২০ টাকা। এছাড়া অর্ডার অনুযায়ী ইফতারের বিভিন্ন প্যাকেজ তো রয়েছে।

তবে সবকিছুর মধ্যে চিকেন সাসলিকই তাদের ইফতার পসরার প্রধান আকর্ষণ বলে জানালেন বিশালের স্বত্বাধিকারী নজরুল ইসলাম। তাদের আয়োজনে পছন্দের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে চিকেন শর্মা ও চিকেন পরোটা।
মুখরোচক ‘চিকেন সাসলিকে’ মজেছেন ক্রেতারানজরুল ইসলাম বলেন, প্রতি বছরই তারা বিশেষ কিছু ইফতার পণ্য নিয়ে ক্রেতাদের সামনে হাজির হন। এবার এসেছেন চিকেন সাসলিক নিয়ে। নতুন আইটেম হিসেবে রয়েছে চিকেন শর্মা ও চিকেন পরোটাও। এছাড়াও রয়েছে ১০০ টাকার বিফ কাবাব। সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যসম্মত এ খাবারগুলো রোজাদারদের বিশেষ পছন্দের। রোজাদারদের উদ্দেশ্যেই এগুলো বাজারে এনেছেন তারা। আর ভোজনরসিক ক্রেতারা তাদের আইটেমগুলো পছন্দও করেছেন। তাই ভালো বিক্রি হচ্ছে।

বিশালের ইফতারে অন্যান্য রেগুলার আইটেমের মধ্যে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী খাসির হালিম, খাসির তেহারি, বোম্বে জিলাপি, বিভিন্ন কাবাব আইটেম। এবার খাসির শাহী হালিম ৬০ টাকা, ১০০ টাকা ও ১৮০ টাকা, খাশির তেহারি ১১০ টাকা ও ২২০ টাকা এবং বোম্বে জিলাপি ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কাবাবের মধ্যে প্রতিপিস জালী কাবাব ১৫ টাকা, কাঠি কাবাব ১৫ টাকা, মিনি কাবাব ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

একইসঙ্গে চিকেন ফুল রোস্ট ৪৫০ টাকা, চিকেন ফ্রাই ৫০ টাকা ও ১০০ টাকা, চিকেন ক্র্যাম ২৫ টাকা, চিকেন রোল ২০ টাকা, চিকেন টোস্ট ২৫ টাকা, তান্দুরি চিকেন ১৩০ টাকা, মিট কোপ্তা ১৫ টাকা, বিফরোল ২৫ টাকা, সবজি পাকোড়া ৫ টাকা এবং বিভিন্ন চপ আইটেম ৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

নজরুল ইসলাম আরও জানান, মানসম্মত ইফতার রোজাদারদের মুখে তুলে দিতে তারা প্রাণান্ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাদের ফাস্টফুডে ঘরোয়া পরিবেশে ইফতার আয়োজন ছাড়াও অর্ডারে ইফতার সরবরাহ করছেন। এছাড়া বিভিন্ন আইটেমের প্যাকেজ ইফতারের ব্যবস্থাও রয়েছে। এর মধ্যে ১০০ টাকায় ১০ পদের, ১৪০ টাকায় ৬ পদের এবং ১৮০ টাকায় প্রতিদিন ৫ পদের ভারী ইফতারের আয়োজন করা হচ্ছে। তবে গরু-খাসির মাংসের দাম বেশি হওয়ায় এবার হালিম, তেহারি জাতীয় বিফ আইটেমগুলোর মূল্য একটু বেশি।

খবরঃ বাংলানিউজ