রাজশাহীর পুঠিয়ায় প্রেমিকার ভয়ে বরের আত্মহত্যা

পুঠিয়া রাজশাহী রাজশাহী বিভাগ

রোববার আব্দুর রহিমের (২৫) গায়ে হলুদ। পরিবারের পক্ষ থেকে সব আয়োজন শেষ। সোমবার বিয়ে। কিন্তু শনিবার সন্ধ্যায় ঘটে বিপত্তি। মলি নামের এক মেয়ে বিয়ের দাবি নিয়ে হাজির আব্দুর রহিমের বাড়িতে। বিষয়টি নিয়ে অস্বস্তির শেষ নেই। চারিদিকে হৈইচৈই। পরিবারের অনেকেই মলিকে বোঝানোর চেষ্টা করে। কিন্তু কোনো লাভ হয় না। মলির একই দাবি যে, মোবাইলে আব্দুর রহিমের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিলো। এভাবেই কেটে যেতে থাকে রাত। রাতের যে কোনো সময় সবার অজান্তেই আব্দুল রহিম বাড়ির থেকে ২০০ গজ দুরে একটি আমের বাগানের গিয়ে এ লজ্জা থেকে বাঁচতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার আদলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আব্দুর রহিম ওই গ্রামের মৃত নুরুল হকের ছেলে। এ ঘটনায় বিয়ের দাবি করা ওই প্রেমিকা মলিকে আটক করেছে পুলিশ। মলি পাশের চারঘাট উপজেলার বাদুড়িয়া গ্রামের আজিতের মেয়ে।

পুঠিয়া থানা পুলিশ ও স্থানীয়দের দেয়া তথ্য অনুযায়ি, চারঘাট উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের এক মেয়ের সঙ্গে আব্দুর রহিমের বিয়ে লাগে। সোমবার বিয়ে। রোববার আব্দুর রহিমের গায়ে হলুদ। পরিবারের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে সব ধরনের প্রস্তুতি। কিন্তু শনিবার সন্ধ্যায় বিয়ের দাবি নিয়ে আব্দুর রহিমের বাড়িতে মলির উপস্থিতিতেই বাধে যতো বিপত্তি।

রোববার সকালে মলির পরিবারের লোকজন মলিকে নিয়ে আসেন আব্দুর রহিমের বাড়িতে। কিন্তু ঘর থেকে মলি একাই ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন। পুরো বাড়ি খোজ করেও পাওয়া যায়না আব্দুর রহিমকে। এ সময় গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় গ্রামের লোকজন আব্দুর রহিমকে আমের বাগানে দেখতে পায়। এদিকে আত্মহত্যার ঘটনা কানে গেলে মলি বাড়ি থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। ওইসময় গ্রামবাসি মেয়েটিকে আটক করে পুলিশকে সংবাদ দেন।

পরে পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে আব্দুর রহিমের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। রোববার বিকেলে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তদন্ত আব্দুর রহমান জানান, এ ঘটনায় বিয়ের দাবি করে আব্দুর রহিমের বাড়িতে উপস্থিত হওয়া মলি নামের ওই প্রেমিকাকে আটক করা হয়েছে। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

দৈনিক সানশাইন