রাজশাহীর ৬৯৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৩৮৯টিই ঝুঁকিপূর্ণ

রাজশাহী

রাজশাহী জেলা ও মহানগর পুলিশেল দেয়া তথ্য মতে, রাজশাহী জেলার ৬টি আসনে ৬৯৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৩৮৯টি কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ। এরমধ্যে রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) অধিনে ১৯৬টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৮৬টি ও জেলায় ৪৯৯টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ২০৩টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

তবে ঝুকিপূর্ণ ভোটকেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তার জন্য অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ করা হচ্ছে। এদিকে নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা অবস্থায় প্রথমবারের মাতো আনসার সদস্যদের হাতে অস্ত্র দেয়া হবে বলে জানা গেছে।

রাজশাহী জেলায় এবার মোট ভোটার ১৯লাখ ৪২হাজার ৫৬২জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ৯লাখ ৭৪হাজার ৮৫২জন এবং ৯লাখ ৬৭হাজার ৭১০জন পুরুষ ভোটার।

মহানগর পুলিশের (আরএমপি) আওতাধিন এলাকায় নির্বাচন কেন্দ্র ১৯৬টি। এর মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ১৮৬টি। আরএমপির কর্তৃপক্ষের দেয়া তথ্য মতে, ভোটের আগের দিন থেকে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলিতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন একজন এসআই বা এএসআইসহ মোট ১৭ জন নিরাপত্তাকর্মী।

এদের মধ্যে একজন এসআই বা এএসআই, চার জন কনস্টেবল এবং ১২জন আনসার সদস্য। আর সাধারণ কেন্দ্রগুলোর একজন কনস্টেবল কমিয়ে দায়িত্বে থাকবে মোট ১৬ জন নিরাপত্তাকর্মী। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এবারই প্রথম আনসার বাহিনীর হাতে আগ্নেয়াস্ত্র প্রদান করা হচ্ছে।

এদিকে নির্বাচন কেন্দ্রের পাশাপাশি পুরো আরএমপি এলাকার নিরাপত্তার জন্য টহলে নিয়োজিত থাকবে ৫১টি মোবাইল টিম। এর বাইরে র‌্যাব, বিজিবি ও সেনাবহিনীর সদস্যরাও নিয়োজিত থাকবে পুরো জেলার ৬টি নির্বাচনী এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্বে।

অপরদিকে রাজশাহী জেলা পুলিশের সহকারি পুলিশ সুপার আব্দুর রাজ্জাক জানিয়েছেন, জেলায় ৪৯৯টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ২০৩টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ঝুঁকিপূর্ণ ভোটকেন্দ্রগুলোতে এক জন এসআই ও এক জন কনস্টেবল নিয়োগ দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে সাধারণ ভোটকেন্দ্রগুলোতে এসআই দায়িত্বে নাও থাকতে পারে। সেগুলোতে দুই জন করে কনস্টেবল দায়িত্বের রাখা হবে। এছাড়াও নিরাপত্তার জন্য টহলে নিয়োজিত থাকবে মোবাইল টিম।

নির্বাচনকে সামনের রেখে মঙ্গলবার সকালে রাজশাহী জেলার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থতি নিয়ে সমন্বয় সভায় এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। রাজশাহী জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মতার আয়োজনে জেলা কমিশনারের সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী জেলার রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে সভায় রাজশাহীর ৯টি উপজেলার ইউএনও ও সকল বাহিনির মুখপাত্ররা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় রাজশাহী মহানগর ও জেলা পুলিশের মুখপাত্রসহ র‌্যাব, বিজিবি, সেনাবাহিনী, ডিজিএফআই, এনএসআই, আনসার, দমকর বাহিনীর মুখপাত্ররা উপস্থিত থেকে রাজশাহীর ৬টি নির্বাচনী আসনে আগামী ৩০ ডিসেম্বর অবাধ, সুষ্ঠ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপুর্ণ নির্বাচনের জন্য নিজেদের সকল প্রস্তুতি ও ভূমিকা সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন। সভায় আরও জানান হয় নির্বাচনকে ঘিরে যেকোন সংকটময় পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাংলাদেশের সকল বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ ডেইলি সানশাইন