রাজশাহী কলেজের বাসের হেলপারকে পেটালো জনতা

রাজশাহী

তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে রাজশাহী কলেজের শিক্ষার্থীবাহী বাসের চালকের সহকারী সুজন হোসেনকে (১৮) পিটিয়েছে স্থানীয় জনতা।

মঙ্গলবার (৯ মে) দুপুরে মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার খরবোনো এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে বোয়ালিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

আহত হেলপার সুজনকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার কাঁকনহাট পৌর এলাকার সিদ্দিক হোসেনের ছেলে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন খান  বলেন, শিক্ষার্থীদের নিয়ে দুপুরে পুঠিয়ার বানেশ্বর থেকে রাজশাহী কলেজের ওই বাসটি শহরের দিকে আসছিল। খরবোনা এলাকায় সড়ক প্রশস্তকরণের কাজ চলছে। ওই এলাকায় বাসটি পৌঁছালে সুজন হোসেন ভ্যানচালক রানাকে সাইড দিয়ে সরে যাওয়ার জন্য বলেন। এ নিয়ে সুজন ও রানার সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে তাদের সঙ্গে হাতাহাতি এবং মারপিটের ঘটনা ঘটে। রানার বাড়ি খবরবোনা এলাকায় হওয়া তিনি আশপাশের লোকজনকে ডাকেন।

এ সময় স্থানীয় জনতা গিয়ে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে সুজনকে গুরুতর আহত করেন। পরে কলেজের ছাত্ররা বাস থেকে নেমে স্থানীয়দের সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়ায়। ততক্ষণে খবর পেয়ে বোয়ালিয়া থানার একটি টহল পুলিশ টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বাসের চালকের সহকারী সুজনকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

খরবোনা এলাকার ভ্যানচালক রানাকেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তার অবস্থা গুরুতর নয়।

এ ঘটনায় রাজশাহী কলেজ কর্তৃপক্ষ থানায় অভিযোগ দিলে মামলা হবে। আর মামলা হলে রানাকে গ্রেফতার দেখানো হবে বলেও জানান ওসি শাহাদাত হোসেন খান।

খবরঃ বাংলানিউজ

15 thoughts on “রাজশাহী কলেজের বাসের হেলপারকে পেটালো জনতা

Comments are closed.