রাজশাহী-৫ আসনে ধানের শীষ পেলেন নজরুল

দুর্গাপুর পুঠিয়া রাজশাহী

রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে অধ্যাপক নজরুল ইসলাম মণ্ডলকে। সোমবার সকালে রাজশাহীর জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা এসএম আবদুল কাদের তাকে প্রতীক বরাদ্দ দেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা পেয়ে অধ্যাপক নজরুল ইসলাম মণ্ডলকে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সোমবার সকালে তাকে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়।

এর আগে গত ১৭ ডিসেম্বর অধ্যাপক নজরুল ইসলামকে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দিতে নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশনা দেন হাইকোর্ট। কিন্তু ধানের শীষ প্রতীক না পেয়ে নজরুল ইসলাম উচ্চ আদালতে রিট আবেদন দাখিলের পর এই আদেশ দেন আদালত।

বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আসনে বিএনপির আরেক প্রার্থী নাদিম মোস্তফার প্রতীক বরাদ্দের আদেশ কেন স্থগিত করা হবে না তাও জানতে চান।

অধ্যাপক নজরুল ইসলামের ছেলে ব্যারিস্টার আবু বক্কর সিদ্দিক রাজন জানান, তার বাবা নজরুল ইসলামকে আগে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছিল বিএনপি। পরে সেটি বাতিল করে নাদিম মোস্তফাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়। গত ৯ ডিসেম্বর দুই প্রার্থীই রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে প্রতীক বরাদ্দের আবেদন করেন। কিন্তু রিটার্নিং কর্মকর্তা নাদিম মোস্তফাকে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দেন। এটি গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের পরিপন্থি। ফলে এনিয়ে তারা রিট আবেদন করেন।

এদিকে প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর প্রচারণায় মাঠে নেমেছিলেন নাদিম মোস্তফা। প্রায় এক যুগ পর প্রাণ পেয়েছিলো এখানকার বিএনপি। তবে আইনি জটিলতায় সেটি থমকে যায়। এখন পর্যন্ত কোনো প্রার্থীই ভোটের মাঠে নেই। এমনকি প্রতীক পেলেও মাঠে নামেননি অধ্যাপক নজরুল ইসলাম।

এই আসনে নাদিম মোস্তফা ও নজরুল ইসলামসহ চারজনকে দলীয় মনোনয়নের চিঠি দেয় বিএনপি। কিন্তু যাচাই-বছাইয়ে মামলার তথ্য গোপন ও ঋণ খেলাপির কারণে বাদ পড়ে নাদিম মোস্তফার মনোনয়ন। নির্বাচন কমিশনে আপিলে শেষ মুহূর্তে প্রার্থিতা ফিরে পান তিনি।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ জাগোনিউজ২৪